চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

জাহিদ হাসান যখন ‘ম্যানেজ মকবুল’!

মকবুলের সবই ভালো শুধু একটা জিনিস ছাড়া। তার শুধু বাগড়া দেওয়ার অভ্যাস। এলাকায় কোনও ইলেকশনের গন্ধ পেলেই দাঁড়িয়ে পড়বে সে। হোক সেটা পাড়ার ক্লাবের নির্বাচন কিংবা এলাকার মেম্বার নির্বাচন। সব নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে মকবুল আছে। এমনকি অবিবাহিত মকবুল স্কুলের অভিভাবক নির্বাচনেও দাঁড়িয়ে পড়ে!

এভাবে সব নির্বাচনে দাঁড়িয়ে বাগড়া দেয়া মকবুলের স্বভাব এবং অনেকটা ব্যবসার মতো। এলাকার এমন কোনও নির্বাচন নেই যে নির্বাচনে মকবুল দাঁড়ায় না। মূলত বাগড়া দিয়ে কিছু সুবিধা আদায়ের জন্য কাজটা করে সে।

ফলে বাগড়া দিলেও মকবুল তাকে ম্যানেজ করার রাস্তা খোলা রাখে। আর মকবুলকে ম্যানেজ করা কঠিন কিছু না। মূলত ম্যানেজ হওয়ার জন্যই সে বাগড়া বাঁধায়। প্রথমদিকে একটু গাই-গুঁই করে। নিজের দাম বাড়ায়। তারপর এক পর্যায়ে ম্যানেজ হয়ে যায়। বাগড়ার গুরুত্ব অনুযায়ি মকবুলকে খুশি করে দিলেই হাসি মুখে বসে পড়ে সে। মকবুলকে ম্যানেজ করে সবকিছু করতে হয় বলে এলাকায় তার নামই হয়ে যায় ‘ম্যানেজ মকবুল’।

বিজ্ঞাপন

মকবুলের ম্যানেজ ব্যবসা ভালোই চলছিলো। কিন্তু এক পর্যায়ে এসে ঘুরে যায় পরিস্থিতি। যে মকবুলকে সবাই ম্যানেজ করতে ব্যস্ত হতো সেই মকবুল-ই উল্টো সবাইকে ম্যানেজ করতে উঠে পড়ে লাগে। কিন্তু কেন…?

এরকম মজার গল্পে নির্মিত হয়েছে ঈদের বিশেষ ধারাবাহিক নাটক ‘ম্যানেজ মকবুল’। আরটিভির জন্য ৭ পর্বের এই নাটকটি লিখেছেন কথাসাহিত্যিক পলাশ মাহবুব। পরিচালনা করেছেন সাজ্জাদ সুমন।

ম্যানেজ মকবুল নাটকে নাম ভূমিকায় অভিনয় করেছেন সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতা জাহিদ হাসান। এছাড়া আরও আছেন অপর্ণা ঘোষ, আরফান আহমেদ, কাজী উজ্জ্বল, হিমে হাফিজ, সুখী সহ অনেকে।

একই নির্মাতা এবার চ্যানেল আইয়ের জন্য নির্মাণ করেছেন ঈদের বিশেষ নাটক ‘#মি টু’। যে বিষয়টি নিয়ে কিছুদিন আগে উত্তাল হয়েছিল হলিউড-বলিউড। যৌন নির্যাতন বিরোধী যে আন্দোলনটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হ্যাশট্যাগে ‘মিটু মুভমেন্ট’ নামে ছড়িয়ে গিয়েছিলে বিশ্বব্যাপী। দাপুটে নির্মাতা, প্রযোজক ও অভিনেতার বিরুদ্ধে যৌন নির্যাতনের অভিযোগে আঙুল তুলেছিলেন বহু অভিনেত্রী। যার আঁচ কিছুটা হলেও লেগেছিলো বাংলাদেশে। আর সেই মুভমেন্ট নিয়েই ঈদে চ্যানেল আইয়ে আসছে নাটক ‘#মি টু’।

বিজ্ঞাপন