চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেরা ফরোয়ার্ড মেসি

২০১৮-১৯ চ্যাম্পিয়ন্স লিগ মৌসুমের জন্য সেরা ফরোয়ার্ড হয়েছেন লিওনেল মেসি। বার্সেলোনা অধিনায়ক পেছনে ফেলেছেন জুভেন্টাসের ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ও লিভারপুলের সাদিও মানেকে।

মেসি-রোনালদোর সঙ্গে অতীতে নেইমার কিংবা অন্য বড় কোনো তারকা তৃতীয় স্থানে ঠাই পেলেও এবারের তালিকায় ছিল চমক। দুই মহাতারকার সঙ্গে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের সেরা ফরোয়ার্ডের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা পেয়েছিলেন শিরোপাজয়ী লিভারপুলের সাদিও মানে। শেষ পর্যন্ত সেরার খেতাব উঠেছে মেসির হাতে।

বিজ্ঞাপন

গত চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ১২ গোল করেছিলেন মেসি। যেটি আসর সর্বোচ্চ। তবে ক্লাব বার্সেলোনাকে ফাইনালে তুলতে পারেননি অধিনায়ক লিও।

খেলার প্রতিটি পজিশন ভেদে সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার দিয়ে থাকে উয়েফা। এবার সেরা গোলরক্ষক হয়েছেন টাইটেল জয়ী লিভারপুলের ব্রাজিলিয়ান গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকার।

বিজ্ঞাপন

পুরো মৌসুমজুড়ে নিজেদের রক্ষণকে দুর্গ বানিয়ে রাখার পুরস্কার হিসেবে সেরা ডিফেন্ডার হয়েছেন অলরেডদের রক্ষণ ভরসা ভার্জিল ফন জিক। মেসি-রোনালদোকে টপকে বর্ষসেরা ফুটবলারের খেতাবও উঠেছে তার হাতে।

বৃহস্পতিবার মোনাকোতে হয়ে গেল চ্যাম্পিয়ন্স লিগের আসন্ন মৌসুমের ড্র। সেখানেই মেসি-রোনালদোকে টপকে ফন জিকের হাতে উঠেছে সেরার পুরস্কার। এক যুগেরও বেশি সময় পর কোনো ডিফেন্ডারের হাতে উঠল বর্ষসেরার খেতাব।

গতবার অন্যসব দলকে চমকে দিয়ে সেমিফাইনাল পর্যন্ত চলে গিয়েছিল ডাচ ক্লাব আয়াক্স। সেই দলের প্রাণভোমরা ছিলেন মিডফিল্ডার ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং। তিনি পারফরম্যান্সের পুরস্কারও পেলেন হাতেনাতে। সেরা মাঝমাঠের খেলোয়াড় হয়েছেন এ মৌসুমে বার্সাতে নাম লেখানো ২২ বছর বয়সী মিডফিল্ডার।

এক নজরে পজিশন ভেদে সেরা খেলোয়াড় যারা
গোলরক্ষক: অ্যালিসন বেকার (লিভারপুল)
ডিফেন্ডার: ভার্জিল ফন জিক (লিভারপুল)
মিডফিল্ডার: ফ্রেঙ্কি ডি ইয়ং (আয়াক্স)
ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি (বার্সেলোনা)

বর্ষসেরা পুরুষ ফুটবলার: ভার্জিল ফন জিক (লিভারপুল)
বর্ষসেরা নারী ফুটবলার: লুসি ব্রোঞ্চে (লিওন)

Bellow Post-Green View