চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

চতুর্থ বর্ষে চ্যানেল আই অনলাইন

আজকের সংবাদের জন্য আগামীকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করার সময় ফুরিয়েছে বহু আগেই। ইন্টারনেট ভিত্তিক তথ্য প্রযুক্তির যুগে পুরো বিশ্বই যখন মানুষের হাতের মুঠোয় তখন সময়ের সংবাদ সে সময়েই জানতে চায়।এক্ষেত্রে দ্রুত এবং সঠিক সংবাদের সমন্বয় করে একে একে তিন বছর পার করে চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ করেছে চ্যানেল আই অনলাইন।

কয়েকটি কম্পিউটার, একজোড়া মোবাইল ফোন আর কিছু তরুণ সংবাদকর্মীর সমন্বয়ে ২০১৫ সালের ২০ এপ্রিল যাত্রা শুরু করা চ্যানেল আই অনলাইন আজ শুধু নিজেদের সংবাদকর্মীর হিসাবেই চারগুণ নয়, অনলাইন সাংবাদিকতায়ও এর প্রভাব বিস্তৃত বহুগুণে।

বিজ্ঞাপন

এ সময়ের মধ্যে যেমন নতুন নতুন বিভাগ চালু হয়েছে, তেমনি উন্নত হয়েছে সংবাদ পরিবেশনের ধরনও। সবার আগে নির্ভুল সংবাদ দেওয়ার সামর্থ্য অর্জনের পাশাপাশি  চ্যানেল আই অনলাইন এখন সমৃদ্ধ মাল্টিমিডিয়ার সব ধরনের কনটেন্টে।

ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব, ইনস্টাগ্রামসহ বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমেও চ্যানেল আই অনলাইনের সরব উপস্থিতি নিজস্ব সমৃদ্ধ মাল্টিমিডিয়া কনটেন্ট নিয়ে।

বর্তমান সময়ে দ্রুত সংবাদ প্রকাশ করতে গিয়ে বিশ্বব্যাপী ভুল সংবাদ ছড়িয়ে পড়ার ঘটনা ঘটছে নিয়মিত। এক্ষেত্রে দ্রুততা না সঠিক বিষয়? এই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন যখন পাঠকদের মনে, তখন চ্যানেল আই অনলাইনের উত্তর: আমরা দ্রুততার সঙ্গে সঠিক সংবাদ প্রকাশ করতে চাই। সবার আগে সংবাদ যদি দিতে নাও পারি তবু ভুল সংবাদ দেব না।

বিজ্ঞাপন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক মফিজুর রহমান বলেন: সাংবাদিকতা হচ্ছে সত্য অনুসন্ধান এবং সেই সত্য তথ্য মানুষের কাছে ঠিকমত পৌঁছাতে হবে। এখন সময়ের গতিতে চলতে গিয়ে যদি সত্যকে আমি উৎসর্গ করি, যথার্থ তথ্য অনুসন্ধানের জন্য যে সময়ের প্রয়োজন সে সময় আমি না দেই তাহলে সে সাংবাদিকতা সত্যানুসন্ধানী সাংবাদিকতা হলো না। সেটা মানসম্মত সাংবাদিকতাও হবে না।

সাংবাদিকতার নীতি নৈতিকতা এবং মূল বিষয় নিয়ে বিশেষজ্ঞদের এ মতামতের কতটা প্রতিফলন ঘটে চ্যানেল আই অনলাইনের সংবাদে? এমন প্রশ্নের জবাবে চ্যানেল আই অনলাইনের সম্পাদক এবং চ্যানেল আই’র সিএনই জাহিদ নেওয়াজ খান বলেন: চ্যানেল আই অনলাইন কোনো বিষয়ে কাভার করলে একদম আগাগোড়া কাভার করে। ঘটনা ঘটলেই আমরা সেটার গভীরে চলে যাচ্ছি। প্রতিদিনই যত ঘটনা ঘটছে সেটা নিয়ে আমরা একটা রিসার্চ করি যে, কোন নিউজটা আমরা গ্রহণ করবো, কোন খবরটার আরো ভেতরে যাবো আমরা।

‘‘আমরা দ্রুত খবর দেবো কিন্তু কোনভাবেই ভুল খবর দেবো না- এই মূল লক্ষ্যকে সামনে রেখে চ্যানেল আই অনলাইন শুধু টেক্সট নয়, ফোকাস করছে মাল্টিমিডিয়ায়ও। ভিডিও, সাউন্ড, গ্রাফিক্স, লাইভ সব নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে পাঠক/দর্শকের সব ধরনের চাহিদার কথা মাথায় রেখে।’’

সাংবাদিকতার সব ধরনের নীতি-নৈতিকতা মেনে এবং যুগের চাহিদার কথা মাথায় রেখে মাল্টিমিডিয়া সাংবাদিকতাই যে চ্যানেল আই অনলাইনের মূল লক্ষ্য, সেই বিষয়টি তুলে ধরে এর প্রকাশক এবং চ্যানেল আই’র পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ বলেন: এখন তো মাল্টিমিডিয়ার সময়, সবার হাতে হাতে স্মার্টফোন, অনলাইন এবং সোশ্যাল মিডিয়া। তাই বলে যে সেই গড্ডালিকা প্রবাহে আমরা মিশে গেছি তা নয়। সাংবাদিকতায় যে নীতি নৈতিকতা মেনে চলতে হয়, চ্যানেল আই অনলাইন সেই জায়গাগুলোকে সবসময় প্রাধান্য দিয়ে থাকে।

বিভিন্ন মহলে সমাদৃত চ্যানেল আই অনলাইনের চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে শুভেচ্ছা জানিয়ে এর উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করেছেন দেশের সব অঙ্গনের বিশিষ্টজনেরা।

চ্যানেল আই অনলাইনের পক্ষ থেকেও এর পাঠক, দর্শক, শ্রোতা, শুভানুধ্যায়ী এবং কর্মীদের অভিনন্দন জানিয়েছেন জাহিদ নেওয়াজ খান।

Bellow Post-Green View