চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

গণধোলাইয়ের পরে কথা বলতে পারছে না রাকিব হত্যার আসামীরা

খুলনায় শিশু রাকিব হত্যার আসামী গ্যারেজ মালিক মিন্টু ও তার ভাই শরীফকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দেয়ে এলাকাবাসী। পরে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হলেও এখনো তারা কথা বলতে পারছে না।

খুলনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) সুকুমার বিশ্বাস চ্যানেল আই অনলাইনকে এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো বলেন, আসামীদের একজন মিন্টুর মা বিউটি বেগমকে আগামীকাল আদালতে হাজির করা হবে। মামলার আরো তথ্যর জন্য আদালতে ১০ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। বাকি দুইজন আসামী মেডিকেল ছাড়পত্র পাওয়ার পর রিমান্ড আবেদন করা হবে।

ঘটনার পরে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মাহাবুব হাকিমকে প্রধান করে তিন সদস্যের ‘তদারকি কমিটি’ গঠন করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বুধবার সকাল ১১টায় খুলনা নগরীর পিকচার প্যালেস মোড়ে ‘বাংলাদেশ মানবধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা’ ও ‘উদ্যোগ’ এর আয়োজনে মানববন্ধন করবে এলাকাবাসী।

মঙ্গলবার এলকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে হত্যায় অভিযুক্ত ‘শরীফ মটরস’ ভাংচুর করে। এ ঘটনায় ওই দিন সকালে খুলনা থানায় মামলা হয়েছে।

সোমবার গ্যারেজে কাজ করা শিশু রাকিব কর্মস্থল ছেড়ে দিয়ে অন্য গ্যারেজে চাকরি নেওয়ার অপরাধে তার মলদ্বারে কম্প্রেসার মেশিন দিয়ে পেটে হাওয়া ঢুকিয়ে নির্যাতন করে শরিফ ও মিন্টু। গুরুতর আহত অবস্থায় খুলনা মেডিকেল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানকার চিকিৎসকরা রাকিবকে জরুরি ভিত্তিতে ঢাকায় পাঠানোর পরামর্শ দেন।

ঢাকায় আসার পথে রাত ১২টার দিকে মারা যায় শিশু রাকিব। ওই সময় ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ও আশপাশের মানুষ গ্যারেজ মালিক মিন্টু তার ভাই শরীফকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করে। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মিন্টুর মা বিউটি বেগমকেও পুলিশ আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

বিজ্ঞাপন