চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ক্যাসিনো কাণ্ড: রাজনৈতিক দুর্বৃত্তদের জন্য সতর্কবার্তা

রাজধানীর বিভিন্ন ক্লাবে এখনও অবৈধ ক্যাসিনো সামগ্রীসহ অস্ত্র-মাদক ও নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রমাণ উদ্ধার হচ্ছে। ওইসব অবৈধ ক্যাসিনো চালানোর পিছনে যুবলীগের অনেকে জড়িত থাকার অভিযোগও উঠেছে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দুর্নীতি ও রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের বিরুদ্ধে কথা বলার পরে যুবলীগের কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে গিয়ে একে একে বের হয়ে আসতে থাকে ক্যাসিনো টাইপ অবৈধ ব্যবস্থা। ক্লাবগুলো ছাড়াও কিছু নেতার বাসা-অফিসে অভিযানে মিলছে নগদ অর্থসহ দুর্নীতির সম্ভাব্য প্রমাণ। বিষয়গুলো দেশের মানুষকে আশাবাদী করে তুলেছে বলে আমাদের মনে হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী প্রথম দিকে এইসব অভিযানের মধ্যে রাজনীতিবিরোধী ষড়যন্ত্র খুঁজে পেয়েছিলেন এবং তিনি প্রশ্ন তুলেছেন যে, এতদিন অবৈধভাবে চলা ক্যাসিনো বা জুয়ার বিরুদ্ধে কেন অভিযান চালানো হয়নি? তবে পরিস্থিতি বুঝতে পেরে তিনি অভিযানের পক্ষে কথা বলতে শুরু করেছেন।

বিজ্ঞাপন

অভিযানে আটক বিভিন্ন নেতাদের অতীতের রাজনৈতিক পরিচয় টেনে এনে তাদের বর্তমান অপকর্মকে আড়াল করার একটা চেষ্টাও দেখা গেছে সামাজিক মাধ্যমে ও অনেক রাজনৈতিক নেতার বক্তব্যে। এ বিষয়ে খুব পরিষ্কার করে সতর্কবার্তা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় শীর্ষ নেতা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি জানিয়েছেন, আটক হওয়াদের অতীত পরিচয় টেনে তাদের বাঁচানোর চেষ্টা করে লাভ হবে না। কারণ তারা বর্তমান পরিচয়েই এসব অপকর্ম করেছে। দুর্নীতির প্রমাণ মিললে কেউ ছাড় পাবে না। দলের মধ্যে এই ধরণের অভিযান চালানোর সৎ সাহসের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সাধুবাদ জানান ওবায়দুল কাদের, যা অতীতে অন্যকোনো দল করতে পারেনি বলেও জানান তিনি। বিষয়টি খুবই ইতিবাচক বলে আমাদের মনে হয়েছে।

দেশের বিভিন্ন খেলাধুলার জন্য তৈরি হওয়া ক্লাবগুলোতে এসব অনৈতিক কর্মকাণ্ডের চর্চা হঠাৎ করে গড়ে ওঠেনি বলে অনেকে দাবি করলেও এর ব্যাপকতা জেনে বিস্মিত পুরো জাতি। একেকটি ক্লাবের ভেতরে ‘মিনি লাস ভেগাস’ কীভাবে গড়ে উঠেছে? কীভাবে ওইসব সামগ্রী আমদানি হয়েছে? সেগুলো নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু হয়েছে। প্রশ্ন উঠতে শুরু হয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ বিভিন্ন দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থার দায়িত্ব নিয়ে। এসব প্রশ্নের উত্তর নিশ্চয় খুঁজবেন দায়িত্বশীলরা।

তবে আশার কথা, দেরি হলেও শুরু হয়েছে দুর্নীতিবিরোধী এসব সংস্কার কর্মসূচি। যা দুর্নীতিবাজ ও রাজনৈতিক দুর্বৃত্তদের জন্য সতর্কবার্তা হিসেবে কাজ করছে। রাতারাতি হয়তো একেবারের সবকিছু শুদ্ধ হবে না, তবে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি বদলে ভূমিকা রাখবে বলে আমাদের ধারণা।

Bellow Post-Green View