চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ওয়ানডে দলে ডাক পেয়ে রোমাঞ্চিত তারা

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ ওয়ানডে দলে জায়গা পেয়েছেন শরিফুল ইসলাম, হাসান মাহমুদ ও মেহেদী হাসান। ডাক পেয়ে তিন তরুণই দারুণ রোমাঞ্চিত। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে ভালো করতে উজ্জীবিত তারা।

শরিফুল ইসলাম
‘অনেক ভালো লাগছে খবরটা শোনার পরে। অনেক খুশি লাগছিল যে প্রথমবারের মতো জাতীয় দলের স্কোয়াডে আছি। ভালো কিছু করার চেষ্টা করবো।’

বিজ্ঞাপন

‘আসলে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের পরে বঙ্গবন্ধু টি-টুয়েন্টি কাপ, প্রেসিডেন্টস কাপে মোটামুটি ভালো খেলেছি। জাতীয় দলের সেরা একাদশে যদি জায়গা পাই, সেই পারফরম্যান্সটা দেয়ার চেষ্টা করব। জায়গাটা ধরে রাখার চেষ্টা করব।’

‘অনেক ভালো লাগছে জাতীয় দলের পরিবেশটা। যখন অনূর্ধ্ব-১৯ দলে খেলতাম বা যখন ক্রিকেট খেলা শুরু করেছি, তখন থেকেই ভাবতাম সাকিব ভাই, মুশফিক ভাই, রিয়াদ ভাই, তামিম ভাই, মোস্তাফিজ ভাই, তাদের সাথে যদি খেলতে পারি, থাকতে পারি। এটা স্বপ্ন ছিল। সেটা পূরণ হয়েছে।’

‘বিশ্বচ্যাম্পিয়ন (যুব বিশ্বকাপ) হওয়ার ক্ষেত্রে আমাদের মূল একটা শক্তি ছিল যে, সবাই একত্র ছিলাম, দেশের জন্য লড়ছি। সেই একতা যদি, সবাই যদি ফাইট করতে পারি দেশের জন্য, আমরা আবার একদিন বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হবো, জাতীয় দলের হয়ে।’

হাসান মাহমুদ
‘যেদিন থেকে খেলা শুরু করেছিলাম, সেদিন থেকেই জাতীয় দলে খেলার স্বপ্ন ছিল। এখন সুযোগ পেয়েছি। আই উইল ট্রাই মাই বেস্ট।’

বিজ্ঞাপন

‘অবশ্যই সিনিয়রদের অনুপ্রেরণা কাজ করে। দেশীয় ক্রিকেটার হোক বা বিদেশি, সবাইকে দেখে দেখেই এতটুকু আগানো। এখন তো অবশ্যই যেহেতু আছি(দলে), সিনিয়রদের দেখে অনুপ্রাণিত হই।’

‘লক্ষ্য অবশ্যই ভালো করার। নিজের সেরাটা দেয়ার। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে নিজের সেরাটা দিতে হবে। এটা দিয়ে তো আমার ক্যারিয়ার শুরু হবে।’

‘না, আসল জিনিসটা হল প্রসেস আর কি। যখন যেখানে যে ফরম্যাটই খেলি, নিজের সেরাটা দিবো। কেবল প্রসেসটা মেইনটেন করার চেষ্টা করব, নিজেকে ফিট রাখার চেষ্টা করব।’

মেহেদী হাসান
‘অবশ্যই পরিশ্রম করে আসছি বাংলাদেশ দলে খেলার জন্য। প্রথমে আমার টি-টুয়েন্টিতে অভিষেক হয়েছে, এখন ওয়ানডেতে সুযোগ এসেছে।’

‘এটা আসলে অনুপ্রেরণা। প্রেশার হবে কেন? আমরা যেহেতু ক্রিকেটার, চাপ নেয়ার কিছু নাই। হার্ড ওয়ার্ক করছি, চেষ্টা করছি, এটা আমাদের অনেককিছু। প্রেশার নিতে হলে সেটা ম্যাচের ভেতরে প্রভাব পড়ে, ম্যাচের বাইরে প্রেশারটা ওরকম আসে না।’

‘যদি সেরা একাদশে সুযোগ হয়, সেরাটা দেয়ার চেষ্টা থাকবে। বোলিং করতে পারি, ব্যাটিং করতে পারি, যে জায়গায় যেখানে সুযোগ আসে, চেষ্টা করব কাজে লাগানোর। যেহেতু অলরাউন্ডার, চেষ্টা থাকবে তিন ফরম্যাটে ভালো করার জন্য। আমার তরফ থেকে শতভাগ চেষ্টাই থাকবে।’

‘পুরো শক্তির দল(উইন্ডিজ) আসলেও সমস্যা ছিল না। আমরা মানসিকভাবে অনেক শক্ত আছি। খেলা কখনও ছোট করে দেখতে নেই, যে দলই হোক। গোল বলের খেলা যেহেতু, বড় টিম আর ছোট টিম নেই। দিনশেষে যে ভালো করবে সে ফল পাবে।’