চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ওসির বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা চলবে কিনা সিদ্ধান্ত ১৬ নভেম্বর

ধর্ষণ মামলা তদন্ত করতে গিয়ে বাদিকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী থানার ওসি (তদন্ত) ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে মামলার গ্রহণযোগ্যতার বিষয়ে ১৬ নভেম্বর আদেশ দিবেন আদালত।

মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল- ১ এর বিচারক রেজাউল করিম চৌধুরীর আদালতে এ মামলার গ্রহণযোগ্যতার উপর শুনানি অনুষ্ঠিত হয়।

বাদি পক্ষের আইনজীবী রেজাউল করিম রনি জানান, আমাদের প্রমাণাদিসহ আদালতে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছি। বিচারক মামলা পর্যালোচনা করে আদেশ দিবেন এ মামলাটির কার্যক্রম চলবে কিনা।

এ জন্য আগামী ১৬ নভেম্বর দিন ধার্য করা হয়েছে। ওইদিন বাদির দায়ের করা অপর একটি মামলার শুনানীর দিন ধার্য আছে, বিচারক গ্রহণযোগ্য মনে করলেই কেবল এই মামলাটির কার্যক্রম চলবে।

বিজ্ঞাপন

তিনি আরো জানান, গত ১১ অক্টোবর চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোধিত ২০০৩) এর ( (৪)(খ) ধারায় ওসি ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয় আদালতে ।

১৯ অক্টোবর বিচারক রেজাউল করিম চৌধুরী মামলাটি চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে তদন্তের জন্য স্থানান্তর করেন। এর দুইদিন পরই ২১ অক্টোবর এ মামলার গ্রহণযোগ্যতার বিষয়ে অধিকতর শুনানির জন্য ২৭ অক্টোবর তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

চলতি বছরের ১০ আগস্ট সাবেক বন্ধু ইফতেখারুল ইসলাম সানির বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে বোয়ালখালী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন বোয়ালখালীর পশ্চিম গোমদন্ডী এলাকার ২৪ বছর বয়সী এক নারী।

ওই নারীর  অভিযোগ, সেই মামলার তদন্তের স্বার্থে থানার ওসি ওমর ফারুকের সাথে সাক্ষাত এবং ফোনে তার কথা-বার্তা হয়। এরই এক পর্যায়ে তাকে বিভিন্নভাবে কুপ্রস্তাব দেন ওসি। এমনকি বাদিকে তার সাথে বেড়াতে বাধ্য করে। বাদি রাজি না হওয়ায় সানির বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় মিথ্যা তদন্ত রিপোর্ট দেন ওসি।

বিজ্ঞাপন