চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইডেনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে থাকবেন যারা

টেস্টের ঘণ্টা বাজাবেন শেখ হাসিনা, উপহার পাবেন ‘গোলাপি’ শাল

ইডেনের ঐতিহাসিক টেস্টের প্রথমদিনে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী- এতটুকু নিশ্চিত। এরমাঝেই ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অব বেঙ্গলের (সিএবি) তরফ থেকে খবর, বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে একইদিনে মাঠে উপস্থিত থাকবেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।

সিএবি সূত্রে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো জানাচ্ছে, ইতিমধ্যেই দুই দেশের প্রতাপশালী তিন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব গ্রিন সিগন্যাল দিয়েছেন মাঠে উপস্থিত থাকার ব্যাপারে। একই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিরও। তবে তার কার্যালয় থেকে এখনও পর্যন্ত ইতিবাচক সাড়া পায়নি সিএবি।

বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ-ভারত রাতের আলোয় ২২ গজে লড়াই করবে গোলাপি বলে। আর গ্যালারি, ভিভিআইপি বক্সে থাকবে নানা চমক! প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য থাকবে বিশেষ উপহারও। গোলাপি বলের টেস্ট, তাই প্রধানমন্ত্রীকে গোলাপি শাল উপহার দিতে চায় সিএবি। দেশটির গণমাধ্যমকে এমনই জানিয়েছেন সিএবি সচিব অভিষেক ডালমিয়া।

২২ নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া ম্যাচে ঘণ্টা বাজিয়ে খেলার উদ্বোধন ঘোষণা করবেন শেখ হাসিনা। প্রথমদিনের খেলা শেষে হবে সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সেই অনুষ্ঠানেই বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীর হাতে বিশেষ নকশা করা শাল তুলে দেবে সিএবি, যাতে থাকবে গোলাপি আভা।

অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করবেন প্রখ্যাত ও জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী রুনা লায়লা, গাইবেন শ্রেয়া ঘোষালও। ভারতের জাতীয় সঙ্গীত গাইবেন শ্রেয়া।

দিবা-রাত্রির টেস্টকে স্মরণীয় করতে চেষ্টার কোনো কমতি রাখতে চায় না ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) ও সিএবি। বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি ২০০০ সালে টাইগারদের অভিষেক টেস্ট দলের ক্রিকেটারদেরও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। থাকবেন একই ম্যাচে খেলা ভারতের সাবেক ক্রিকেটাররাও।

বিজ্ঞাপন

বর্তমান দলের ক্রিকেটারদের সঙ্গে ভারতের জাতীয় সঙ্গীতে গলা মেলাবেন বিভিন্ন সময়ে টেস্টে নেতৃত্ব দেয়া দেশটির সাবেক অধিনায়করা। প্রথম দুইদিন ধারাভাষ্যকক্ষে মাইক্রোফোন হাতে টেস্টে তাদের স্মরণীয় মুহূর্তগুলোর স্মৃতিচারণ করবেন। সেই মুহূর্তগুলো টেস্টের চতুর্থ দিনের বিরতির সময়ে দেখানো হবে।

ভারতের সাবেক টেস্ট অধিনায়কদের সংবর্ধনাও দেয়া হবে ইডেনে। ক্রিকেটারদের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তার ভূমিকায় থাকতে পারেন সাবেক ব্যাটসম্যান কিংবদন্তি শচীন রমেশ টেন্ডুলকার।

শচীনকে অনুরোধ করা হবে ইডেনের দর্শকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলার জন্য। জীবনের ১৯৯তম টেস্ট ইডেনেই খেলেছেন তিনি। এখানে রয়েছে তার নানা স্মরণীয় মুহূর্ত। হিরো কাপ সেমিফাইনালে বল হাতে ম্যাচ জেতানোর মতো বহু স্মরণীয় পারফরম্যান্স এই মাঠেই করেছেন শত সেঞ্চুরির মালিক। কলকাতার মাঠটি নিয়ে খুব আবেগপ্রবণ তিনি। দিনরাতের টেস্টেও সেই আবেগ ভাসিয়ে নিয়ে যেতে পারে ভক্তদের।

এসবের সঙ্গে অন্য ভাবনাও রয়েছে। ইডেনের কাছাকাছি যে বহুতল ভবনগুলো আছে, সেগুলো গোলাপি আলোর চাদরে মুড়ে ফেলার পরিকল্পনা রয়েছে আয়োজকদের। গোলাপি বলে ভারতের প্রথম দিনরাতের টেস্টে গোলাপি আতশবাজি ফোটানোর পরিকল্পনা রয়েছে সিএবির।

মঙ্গলবার বিকেলে কলকাতার বাংলাদেশ দূতাবাসের ডেপুটি হাইকমিশনার তৌফিক হাসান-সহ চার সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ইডেন ঘুরে এসেছেন। গোটা মাঠ ও স্টেডিয়াম ঘুরে দেখেন তারা। সিএবি সচিব অভিষেক ডালমিয়ার সঙ্গে বৈঠকও করেছে প্রতিনিধি দলটির সদস্যরা।

এমন জমকালো টেস্টকে ঘিরে এরইমধ্যে হইচই পড়ে গেছে দুই দেশের ক্রিকেট সমর্থকদের মাঝে। অনলাইনে ছাড়া মাত্রই বিক্রি হয়ে গেছে প্রায় সবগুলো অগ্রিম টিকিট।

Bellow Post-Green View