চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

ইকুয়েডরের জালে ‘তরুণ’ আর্জেন্টিনার আধা ডজন গোল

ছিলেন না লিওনেল মেসি। এক পাওলো দিবালা ছাড়া বড় কোনো নাম ছিল না একাদশে। তারুণ্য নির্ভর সেই দল নিয়েই ইকুয়েডরের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে গোলবন্যা ছুটিয়েছে আর্জেন্টিনা। মহাদেশীয় প্রতিপক্ষের বিপক্ষে লিওনেল স্কোলনির শিষ্যদের জয় ৬-১ ব্যবধানে।

এই জয়ে সবশেষ তিন ম্যাচে নিজেদের অপরাজিত রাখল দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। তিনদিন আগে শক্তিশালী জার্মানিকে তাদেরই মাঠে ২-২ গোলে রুখে দিয়েছিল আর্জেন্টিনা। স্কোলনির অধীনে দলটি সবশেষ হার দেখেছে চলতি বছর কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের বিপক্ষে সেদিন ২-০তে হেরেছিল মেসির দল।

বিজ্ঞাপন

রোববার ভ্যালেন্সিয়ার এস্তাদিও ম্যানুয়েল মার্টিনেজ স্টেডিয়ামে ইকুয়েডরের বিপক্ষে জার্মান ম্যাচের লাইনআপের পুরনো ছয়জনকে বসিয়ে নতুনদের সুযোগ দেন কোচ স্কোলনি। তবে আক্রমণভাগ ছিল আগের মতই।

লৌতারো মার্টিনেজের সঙ্গে আক্রমণে জুটি গড়েন জার্মান ম্যাচে গোল পাওয়া লুকাস অ্যালাইরো। এ ম্যাচেও ছিলেন না অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া, সার্জিও আগুয়েরোদের মতো তারকারা। জুভেন্টাস ফরোয়ার্ড দিবালাকেও মূল একাদশে রাখেননি সোলারি।

বিজ্ঞাপন

বড় বড় নাম ছাড়াই ৩২ মিনিটের মধ্যে ইকুয়েডরের জালে তিনবার বল জড়ায় আর্জেন্টিনা। ২০ মিনিটে কর্নার থেকে মার্কোস অ্যাকুইনার শটে হেড করে আলবিসেলেস্তেদের এগিয়ে দেন লুকাস অ্যালাইরো। টানা দুই ম্যাচে গোল করলেন বেয়ার লেভারকুসেন ফরোয়ার্ড।

সাত মিনিট পর দ্বিতীয় গোলের স্বাদ পায় লা আলবিসেলেস্তেরা। ইকুয়েডর ডি-বক্সের বাইরে থেকে বাঁ-প্রান্ত ধরে ২৭ মিনিটে মার্কোস অ্যাকুইনার শটে বল প্রতিপক্ষ খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে জড়িয়ে যায় জালে।

আর্জেন্টিনার তৃতীয় গোলটি পেনাল্টি থেকে। ৩১ মিনিটে লৌতারো মার্টিনেজ ফাউলের শিকার হলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পরের মিনিটে স্পটকিকে গোল করেন লিয়ান্দ্রো পারাদেস।

বিরতি থেকে ফিরে ৪৯ মিনিটে অ্যাঙ্গেল মিনা এক গোল শোধ দিলেও আর্জেন্টিনার গোলবন্যা থামাতে পারেনি ইকুয়েডর। ৬৬ মিনিটে দিবালার ফ্রি-কিক থেকে হেডে গোল করে হালি পূর্ণ করেন হারম্যান পেজাইয়া।

আর্জেন্টিনার পঞ্চম গোলটি এসেছে বদলি ফরোয়ার্ড নিকোলাস ডমিঙ্গুয়েজের থেকে। ৮২ মিনিটে ডি-বক্সের ঠিক বাইরে থেকে জোরাল শটে বল জালে জড়ান এ মিডফিল্ডার। চার মিনিট পর ডান প্রান্তের দুরূহ কোন থেকে শট নিয়ে দর্শনীয় গোলে বড় জয় নিশ্চিত করেন লুকাস ওকাম্পোস।

Bellow Post-Green View