চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

‘আমার ক্ষেত্রে বিচারের বাণী নিভৃতে কেঁদেছিল’

পরিবারের বেশিরভাগ সদস্যসহ জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর তার বিচারের প্রেক্ষাপট স্মরণ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘তখন বহুবার হাইকোর্ট ভবনে গিয়েছি কিন্তু আমার ক্ষেত্রে বিচারের বাণী নিভৃতে কেঁদেছিল।’

ঢাকার নবনির্মিত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে বুধবার এ কথা বলেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

সেসময় প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সংবিধানে দেশের সকল নাগরিকের বিচার পাওয়ার অধিকার দেওয়া থাকলেও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ ১৫ই আগস্টের নির্মম হত্যার বিচার চাওয়ার অধিকার একসময় আমাদের ছিল না। দিল্লি থেকে ঢাকায় আসার পর হাইকোর্ট ভবনে বহুবার গিয়েছি। কিন্তু আমার ক্ষেত্রে বিচারের বাণী নিভৃতে কেঁদেছিল।’

বিজ্ঞাপন

‘‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর খুনিদের বিচার বন্ধে ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স (দায়মুক্তি আদেশ) জারি করা হয়েছিল।

অবশেষে ৯৬ সালে আমরা ক্ষমতায় আসার পর ইনডেমনিটি অর্ডিন্যান্স বাতিল হয়। বিচারের সুযোগটা আবার তৈরি হয়। এরপর জাতির পিতার হত্যার বিচারের রায় হলে খুনিদের সাজা কার্যকর করা হয়।’’

এই অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হকসহ বিচার বিভাগ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা যুক্ত ছিলেন।