চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আমরা এখন হস্তক্ষেপ করব না: মিন্নি প্রসঙ্গে হাইকোর্ট

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নিকে গ্রেপ্তার ও রিমান্ডে নেওয়া বিষয়ে এখন কোনো হস্তক্ষেপ করবেন না হাইকোর্ট। 

বিজ্ঞাপন

মিন্নিকে গ্রেপ্তার ও রিমান্ডে নেওয়ার বিষয়ে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ আজ হাইকোর্টের নজরে আনেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ফারুক হোসেন।

বিজ্ঞাপন

এই আইনজীবী আদালতকে বলেন, বাদির সবচেয়ে আস্থাভাজন হিসেবে মিন্নিকে এক নম্বর সাক্ষী করা হয়েছে। অথচ তাকে ১২ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে আদালতে তোলা হয়। এরপর আদালত ৫ দিনের রিমাণ্ড দিয়েছেন। এ বিষয়টি উচ্চ আদালতের দেখা উচিত। তার পক্ষে কোনো আইনজীবীও দাঁড়াচ্ছে না।

তখন বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চ বলেন: পুলিশ মামলার তদন্ত করছে। এটাতে আমরা এখন ইন্টারফেয়ার (হস্তক্ষেপ) করব না।

এরপর আইনজীবী ফারুল হোসেন বলেন, তদন্ত হবে। কিন্তু সে (মিন্নি) তো সাক্ষি।  তাকে রিমাণ্ডে নেওয়া হয়েছে। তখন আদালত বলে, ‘কিন্তু সে তো এখন অ্যারেস্টড। পুলিশ বলছে তার বিরুদ্ধে স্পেসিফিক অ্যালিগেশন আছে। এখন আপনার কিছু করার থাকলে ফৌজদারি নিয়ম মেনে করুন।  প্রোপার চ্যানেলে আসুন। আমরা তদন্তে ইন্টারফেয়ার করতে পারি না।’

গত ২৬ জুন বরগুনায় রিফাত শরীফকে প্রকাশ্য সড়কে কুপিয়ে হত্যার সময় মিন্নি স্বামীকে বাঁচানো চেষ্টার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ার পর বিষয়টি সারাদেশে আলোচনার ঝড় তুলে।

এরপর শরীফের বাবা দুলাল শরীফ ১২ জনকে আসামি করে যে মামলাটি করেন, তাতে প্রধান সাক্ষী করা হয়েছিল মিন্নিকে। কিন্তু পরে পুত্রবধূ মিন্নির বিরুদ্ধে ছেলে হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগ তোলেন।

গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টায় মিন্নিকে গ্রেপ্তারের কথা জানায় বরগুনার পুলিশ।  এরপর তাকে ১২ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে আদালতে তুলে রিমান্ড চাইলে বরগুনার আদালত ৫ দিনের রিমাণ্ড মঞ্জুর করেন।

Bellow Post-Green View