চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

আফগানিস্তান ছাড়তে বাধ্য হলেন পপস্টার আরিয়ানা

তালেবানরা আফগানিস্তান দখল করায় সবচেয়ে আতঙ্কে আছেন দেশটির সাধারণ নারী ও শিল্প সংস্কৃতির সঙ্গে জড়িতরা। বিশেষ করে যারা নারী স্বাধীনতায় বিগত কুড়ি বছর ধরে কাজ করছেন নানাভাবে।

তাদের অন্যতম দেশটির তুমুল জনপ্রিয় পপস্টার আরিয়ানা সাঈদ। সম্প্রতি তিনিও প্রাণ নিয়ে কোনোরকম নিজের জন্মভূমি ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন।

নিজের ইনস্টাগ্রামে দেশ ছেড়ে যাওয়ার বিস্তারিত তুলে ধরেছেন শিল্পী ও টিভি ব্যক্তিত্ব আরিয়ানা। জানিয়েছেন, দেশ ছাড়ার আগে টানা কয়েক রাত বিমান বন্দরে নির্ঘুম আর রুদ্ধ হয়ে থাকার অভিজ্ঞতাও শোনাবেন পৃথিবীর মানুষকে।

বিজ্ঞাপন

আফগানিস্তানের দু’টি টেলিভিশন চ্যানেলের সঙ্গেও কাজ করতেন আরিয়ানা সাঈদ। একটি গানের অনুষ্ঠানে বিচারকও ছিলেন তিনি।

গান চর্চার পাশাপাশি নারী স্বাধীনতা এবং মেয়েদের অধিকার রক্ষার জন্য কাজ করতেন আরিয়ানা। যে কারণে বহুবার প্রাণনাশের হুমকিও পেয়েছেন, কিন্তু দমে যাননি। বরং তার অনুপ্রেরণায় বহু আফগান নারী কর্মক্ষেত্রে এগিয়ে এসেছেন।

তালেবানরা নারী শিক্ষা ও স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। প্রথমবার আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর নারীর প্রতি সহিংসতা প্রত্যক্ষ করেছেন আরিয়ানা নিজেই। সেসময়ও দেশ ছাড়তে হয়েছিলো তার পরিবারকে। এবারও আফগানিস্তানের বেশিরভাগ অংশ তালেবানরা দখলে নিলে অনেকের মতো পাল্টে যেতে থাকে তার জীবনও।

সর্বশেষ গেল রবিবার তালেবানরা কাবুল দখলে নিলে রীতিমত রুদ্ধ হয়ে পড়েন আরিয়ানা। টানা কয়েক দিন আতঙ্ক আর নির্ঘুম থাকার পর গত বুধবার আমেরিকার উদ্ধারকারী বিমানে চড়ে কাবুল ছাড়েন তিনি। কাবুল থেকে দোহা এবং সেখান থেকে তুরস্কের ইস্তানবুলে আপাতত রয়েছেন বলেও জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন