চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

অবতরণের আগ মুহূর্তে যোগাযোগ হারালো চন্দ্রযান-২, বিধ্বস্তের আশঙ্কা

চাঁদে ভারতের দ্বিতীয় মহাকাশ যান চন্দ্রযান-২ এর সাথে অবতরণের ঠিক আগ মুহূর্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে মহাকাশযানটি চন্দ্রপৃষ্ঠে বিধ্বস্ত হয়েছে।

মহাকাশযানটির পাঠানো তথ্য-উপাত্ত পর্যালোচনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ভারতীয় বিজ্ঞানীরা।

বিজ্ঞাপন

চন্দ্রযান-২ এর উদ্দেশ্য ছিলো প্রথম মহাকাশযান হিসেবে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণ করে পানির সন্ধান করা।

চন্দ্রযান-২ এর উৎক্ষেপণ হয়েছিল গত ২২ জুলাই। মহাকাশযানটির ইঞ্জিন অপেক্ষাকৃত কম শক্তিশালী হওয়ায় এটি কয়েক সপ্তাহ পৃথিবীর কক্ষপথে ঘুরে গতি সঞ্চয় করেছিল। ২২ দিন পর পৃথিবীর কক্ষপথ ছেড়ে চন্দ্রযান-২ চাঁদের দিকে রওনা হয়।

এরপর গত ২০ আগস্ট চন্দ্রযান-২ চাঁদের কক্ষপথে অবস্থান নেয়। ২ সেপ্টেম্বর মূল মহাকাশযান থেকে বিচ্ছিন্ন হয় এর ল্যান্ডার। ‘বিক্রম’ নামের ল্যান্ডারটি অবতরণের উদ্দেশ্যে ঠিকঠাকভাবে চন্দ্রপৃষ্ঠের দিকে নেমে আসতে শুরু করলেও ২ কিলোমিটার বাকি থাকতেই হঠাৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।চন্দ্রযান-২-যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

বিজ্ঞাপন

চন্দ্রযান-২ মিশনের অগ্রগতি পর্যবেক্ষণে ব্যাঙ্গালুরুতে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র ‘ইসরো’র হেডকোয়ার্টারে গিয়েছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মহাকাশযানের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হলেও বিজ্ঞানীদের সাহস না হারিয়ে কাজ করে যাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

মহাকাশযানটির সঙ্গে যোগাযোগ হারিয়ে মনক্ষুণ্ন হওয়া ইসরো’র বিজ্ঞানীদের উদ্দেশ্যে মোদি বলেন, ‘আপনারা কেউ আশা ছাড়বেন না। এটি কোনো ছোট অর্জন ছিল না। পুরো ভারত আপনাদের নিয়ে গর্বিত।’

অন্যদিকে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর শুক্রবার রাতে বিজ্ঞানীদের দলটিকে অভিনন্দন জানিয়ে কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী এক টুইটবার্তায় বলেন, ‘আপনাদের পরিশ্রম এবং অসাধারণ প্রচেষ্টা বৃথা যায়নি। এ কাজের প্রতি আপনাদের নিবেদন ও আত্মত্যাগ প্রত্যেক ভারতীয়র জন্য প্রেরণার উৎস। এটি ভবিষ্যতের আরও অনেক নতুন এবং উচ্চাভিলাষী মহাকাশ অভিযানের জন্য ভিত্তি তৈরি করে দিয়েছে।’চন্দ্রযান-২-যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

চন্দ্রযান-২ এর উদ্দেশ্য ছিল চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালানো এবং পানির সন্ধান করা। এর আগে, ২০০৮ সালে ভারত চাঁদে তাদের প্রথম মহাকাশযান চন্দ্রযান-১ পাঠালেও, সেটি চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণের পরিকল্পনা ছিল না।

চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার ও রোবটযানের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হলেও মহাকাশযানের বাকি অংশটি সচল অবস্থায় চাঁদের কক্ষপথে আছে, যা প্রতিনিয়ত তথ্য দিয়ে চলেছে।

Bellow Post-Green View