বইমেলা থেকে দুই বছরের জন্য শ্রাবণ প্রকাশনীকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। শ্রাবণের সত্ত্বাধিকারী রবীন আহসান এবারের বইমেলার স্টলের আবেদন পত্র আনার সময় বিষয়টি জানতে পারেন।

বাংলা একাডেমির কিছু কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে কথা বলায় তার উপরে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

বাংলা একাডেমির ডিজি শামসুজ্জামান খানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, গত বছরের বই মেলায় মহানবী সম্পর্কে একটি কুৎসিত বই বের হয়েছিলো। পরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সেই বইটি বাতিল ও বাজেয়াপ্ত করে। ওই বইয়ের লেখক-প্রকাশককে গ্রেফতার করা হয়। ওই বই বাতিল করা যাবে না, এমন দাবিতে প্ল্যাকার্ড হাতে সমাবেশ করে শ্রাবণ। সেজন্যই শ্রাবণকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এই ব্যাপারে শ্রাবণ প্রকাশনীর সত্ত্বাধিকারী রবীন আহসান চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, গতবছরও বাংলা একাডেমি এই ব্যাপারে আমাদের কোনো নোটিশ দেয়নি। এবারও দেয়নি। এবার যখন ফর্ম আনতে লোক পাঠিয়েছি তখন তারা বলেছে শ্রাবণ প্রকাশনী নিষিদ্ধ।

এর কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে তিনি বলেন, গতবার বইমেলা থেকে  প্রকাশক শামসুজ্জোহা মানিককে গ্রেফতার করা হয়। শামসুজ্জোহা মানিকের পক্ষে ও বাংলা একাডেমির ওই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে টেলিভিশন টকশোগুলোতে কথা বলায় এবং সমাবেশ করায় এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।

তবে এখনকার করণীয় সম্পর্কে জানতে চাইলে রবীন বলেন, সবকিছু গুছিয়ে তারপর কর্মপরিকল্পনা নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবো। ওই সময়ের সমাবেশে যারা ছিলো তাদের কেউ কেউ বাংলা একাডেমি ঘেরাও কর্মসূচি প্রদান করেছে।

উল্লেখ্য গত বইমেলায় আলোচিত সেই বইটি বের হয়েছিলো বদ্বীপ প্রকাশনী থেকে। বইমেলায় বদ্বীপ প্রকাশনীর স্টল বন্ধ করা ও লেখক-প্রকাশক সামশুজ্জোহা মানিকের গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে সরব ছিলেন শ্রাবণ প্রকাশনীর স্বত্ত্বধিকারী রবীন আহসান। সেই জন্যই আগামী দুই বছরের জন্য তার প্রতি এই নিষেধাজ্ঞা।