চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ
ব্রাউজিং

ভাষা সংগ্রামীর বাংলাদেশ

ভাষা সংগ্রামীর বাংলাদেশ , চ্যানেল আই অনলাইন

‘ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিবাদী কণ্ঠে বলে উঠল, আমরা ১৪৪ ধারা ভাঙবই ভাঙব’

ভাষা সংগ্রামী রওশন আরা বাচ্চু। ১৯৩২ সালের ১৭ ডিসেম্বর সিলেটের কুলাউরা থানার উছলাপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার বাবা এ এম আরেফ আলী ও মা মনিরুন্নেছা খানম। ভাষা সংগ্রামী রওশন আরা বাচ্চু ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের একজন সক্রিয় অংশগ্রহণকারী। ২১শে ফেব্রুয়ারিতে যেসব ছাত্রনেতা ১৪৪ ধারা ভেঙে সামনে এগিয়ে গেছেন তিনি তাদের অন্যতম। রওশন আরা বাচ্চু ১৯৪৭ সালে পিরোজপুর গার্লস স্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করে বরিশাল ব্রজমোহন (বিএম) কলেজে ভর্তি হন। বিএম কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে ১৯৪৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শন বিভাগে স্মাতক…

‘শিক্ষার্থীরা ভালো করে বাংলা বলতে পারে না, মিশিয়ে বলে সেটা খুবই দুঃখজনক’

ভাষা সংগ্রামী হালিমা খাতুন। ১৯৩৩ সালের ৮ আগস্ট বাগেরহাটের বাদেকাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার বাবা মৌলভী আব্দুর রহিম, মা দৌলতুন নেছা।হালিমা খাতুন বাদেকাড়া পাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে বাগেরহাটের মনমোহিনী গার্লস স্কুল থেকে ১৯৪৭ সালে ম্যাট্রিকুলেশন পাশ করেন। বাগেরহাট প্রফুল্লচন্দ্র কলেজে থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশের পর ১৯৫১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে ভর্তি হন। ইংরেজিতে এমএ পাশ করার পর তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় এমএ পাশ করেন। ১৯৬৮ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ইউনিভার্সিটি অব…

‘১৯৫১ সাল পর্যন্ত রাষ্ট্রভাষা দিবস পালন হতো ১১ মার্চ’

ভাষা সংগ্রামী আব্দুল গফুর। ১৯২৯ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি রাজবাড়ী (তৎকারীন ফরিদপুর) জেলার চাঁদপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা আলহাজ মোঃ হাবিব উদ্দিন। আব্দুল গফুর তমদ্দুন মজলিশের মাধ্যমে ভাষা আন্দোলনে জড়িত হন। সাপ্তাহিক সৈনিক পত্রিকার সহকারী সম্পাদক থেকে সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছন তিনি। ’৬০এর দশকে কলেজে শিক্ষকতা করেছেন। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি আবার সাংবাদিকতা পেশায় ফিরে আসেন। সর্বশেষ দৈনিক ইনকিলাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০৬ সালের ৩ জানুয়ারি ভাষা সংগ্রামী আব্দুল গফুরের সাক্ষাতকার গ্রহণ করেছেন তারিকুল ইসলাম মাসুম।…

‘রাজনৈতিক সদিচ্ছা না থাকলে কোনদিনই বাংলা ভাষায় উচ্চ শিক্ষার প্রসার ঘটবে না’

গবেষণামূলক ও সাক্ষাতকারভিত্তিক গ্রন্থ ‘ভাষা সংগ্রামীর বাংলাদেশ’ থেকে সংক্ষেপিত

‘যেটা দৈনিক ব্যবহার করি, সেইডাই দেহি উর্দু হইয়া আইসা পড়ছে’

ভাষা সংগ্রামী ডা. মির্জা মাজহারুল ইসলামের বাবা মির্জা হেলাল উদ্দিন। ১৯২৭ সালের ১ জানুয়ারি টাঙ্গাইলের কালিহাতির চারানে তার জন্ম। ভাষা সংগ্রামী ডা. মির্জা মাজহারুল ইসলাম কলকাতা মেডিকেল কলেজে এমবিবিএস এর ছাত্র হিসেবে ভর্তি হন। ১৯৪৬ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ প্রতিষ্ঠার পর প্রথম ব্যাচে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি হন। এমবিবিএস পাশ করেন ১৯৫১ সালে। ভাষা আন্দোলনে তিনি তমদ্দুন মজলিশের সদস্য এবং ঢাকা মেডিকেল কলেজের ছাত্র হিসেবে অংশগ্রহণ করেন। এমবিবিএস ফাইনাল পরীক্ষার পর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কাজ করেন তিনি। ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজ…

‘সরকারি চিঠিপত্রে ইংরেজিতে দাওয়াত দেওয়া হয়, এর চাইতে ঘৃণার জিনিস আর নাই’

গবেষণামূলক ও সাক্ষাতকারভিত্তিক গ্রন্থ ‘ভাষা সংগ্রামীর বাংলাদেশ’ থেকে সংক্ষেপিত

‘মানুষের মৌলিক দাবির কিছু কিছু বাস্তবায়ন করতে পারি নাই’

ভাষা সংগ্রামী শেখ আবদুল আজিজ।  ১৯২৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ থানার টালিগাতি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি।  মরহুম হাজী শেখ হাফিজ উদ্দিনের ছেলে ভাষা সংগ্রামী শেখ আবদুল আজিজ। আওয়ামী লীগের জন্ম থেকে এ সংগঠনের সদস্য শেখ আবদুল আজিজ।  এই ভাষা সংগ্রামী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের প্রথম মন্ত্রিসভার ৭ সদস্যের একজন। তাজউদ্দিনের মন্ত্রিসভায় যোগাযোগ মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।  ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু দেশে ফিরে এসে আরো ৫ জন সদস্য বাড়িয়ে মন্ত্রিসভা ১২ জনের করেন।  তখন তাকে দেয়া হয় কৃষি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব।  ১৯৭৩ সালে…

‘আমি নেতৃত্ব দিছি, কিন্তু পদের প্রতি কোনো মোহ ছিল না’

ভাষা সংগ্রামী আব্দুল জলিল ভূইয়ার জন্ম ১৯২৯ ৯ জানুয়ারি কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার হারং গ্রামে। তার বাবা আলী নেওয়াজ ভূইয়া। চান্দিনা পাইলট হাইস্কুল থেকে ম্যাট্রিকুলেশন পাশের পর ১৯৪৭ সালে ভর্তি হন জগন্নাথ কলেজে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসিতে ভর্তি হন ১৯৫০ সালে। ছাত্র অবস্থায় তিনি স্টুডেন্ট ফেডারেশন ও ছাত্র ইউনিয়নের সাথে জড়িত ছিলেন। লেখাপড়া শেষ করে রাজনীতি এবং শিক্ষকতা করেন তিনি। বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯২ সালে সিদ্ধেশ্বরী হাইস্কুল থেকে অবসর নেন। ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) এর রাজনীতি…

‘সেই ঘরের মধ্যে গিয়া ঢুকলাম, ঢুইকা কোনমতে জান বাঁচাইলাম’

গবেষণামূলক ও সাক্ষাতকারভিত্তিক গ্রন্থ ‘ভাষা সংগ্রামীর বাংলাদেশ’ থেকে সংক্ষেপিত

‘ভাষাকে আরও সহজ করার চেষ্টা করতে হবে’

ভাষা সংগ্রামী আব্দুর রকিব খন্দকার। এ. আর. খন্দকার নামে পরিচিত তিনি। ১৯৩৩ সালের ১ মার্চ মুন্সীগঞ্জের সিরাজদী খান থানার ঘনশ্যামপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার পিতা মরহুম আব্দুর রউফ খন্দকার। ভাষা সংগ্রামী আব্দুর রকিব খন্দকার ১৯৪৭ সালে রায় বাহাদুর শ্রীনাথ উচ্চ ইংরেজি বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিক পাশ করেন। এরপর ভর্তি হন ঢাকার জগন্নাথ কলেজে। জগন্নাথ কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন মেধা তালিকায় চতুর্থ স্থান অধিকার করে। ১৯৪৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতি বিভাগে ভর্তি হন। সংযুক্ত ছিলেন সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে। বাংলাদেশ পুলিশের…