কনসার্টে ব্যস্ত গুরু জেমস, মাতাবেন পুরো ডিসেম্বর

দুই দিনে মাতাবেন চার কনসার্ট

করোনা মহামারীর কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে নেই কোনো কনসার্ট। শিল্পীরা প্রস্তুত থাকলেও এতোদিন কনসার্ট আয়োজনের অনুমতি পায়নি আয়োজকরা। মাস দুয়েক হলো অবস্থা কিছুটা স্বাভাবিকের দিকে। সেই সূত্রেই গেল মাস থেকে কনসার্টে ফিরেছেন নগরবাউল খ্যাত গুরু জেমস!

নভেম্বরের ১২ তারিখ থেকে নিয়মিত কনসার্টে গাইছেন জেমস। শুধু রাজধানী কেন্দ্রিক কনসার্টগুলো নয়, সারা দেশেই তিনি ছুটে চলেছেন। অংশ নিচ্ছেন করপোরেট শো থেকে শুরু করে খোলা মঞ্চে আয়োজিত কনসার্টগুলোতেও। ডিসেম্বরে এসে কনসার্টের চাহিদা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। পাচ্ছেন না দম ফেলার ফুরসত। এমনকি এক দিনে একাধিক কনসার্টেও অংশ নিচ্ছেন জেমন।

এমনটাই জানিয়েছেন জেমস-এর মুখপাত্র রুবাইয়াৎ ঠাকুর রবিন। শনিবার দুপুরে তিনি চ্যানেল আই অনলাইনকে জানান, পুরো ডিসেম্বর জুড়ে জেমস ভাইয়ের ব্যস্ত সিডিউল। প্রায় প্রতিদিনই আছে কনসার্ট। এরমধ্যে ঢাকার বাইরেও বেশকিছু কনসার্টে গাইবেন জেমস ভাই। এটি চলবে একেবারে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

রবিন জানান, শনি ও রবিবার (১১ ও ১২ ডিসেম্বর) টানা দুই দিনে মোট চারটি কনসার্টে অংশ নিচ্ছেন জেমস ভাই। এরমধ্যে শনিবার বিকেল ৪টায় ‘ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলোজি এন্ড সাইন্স’-এ রয়েছে কনসার্ট, সেখানে গান করে সন্ধ্যায় সংসদ ভবন চত্ত্বরে কৃষিবীদদের আয়োজনে আরেকটি কনসার্টে অংশ নিবেন তিনি।

শনিবারের মতো রবিবারেও জেমস অংশ নিবেন দুটি আলাদা কনসার্টে। এরমধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কনাসার্টে মঞ্চ উঠবেন তিনি। দর্শকে শোনাবেন তার জনপ্রিয় কিছু গান। কনসার্টের আয়োজন করেছে, বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস ‘নগদ’। এদিন বিকেলে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস উপলক্ষে বাড্ডায় অবস্থিত ইউনাইটেড ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি-এর মাঠে গাইবেন জেমস।

নিয়মিত স্টেজ শো ছাড়াও সর্বশেষ এই শিল্পীকে ২০১৭ সালে ‘সত্ত্বা’ ছবিতে গাইতে দেখা যায়। এই ছবির ‘তোর প্রেমেতে অন্ধ আমি’ গানটি ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে এবং সেই বছর জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও অর্জন করে।

জেমসের গাওয়া সেরা ১০ গানের মধ্যে, বাংলাদেশ, জেল থেকে আমি বলছি, মা, দুখিনী দুঃখ করো না, লেইস ফিতা লেইস, বাবা কতো দিন, বিজলী, দুষ্টু ছেলের দল, মিরাবাঈ, পাগলা হাওয়া, গুরু ঘর বানাইলা কী দিয়া উল্লেখযোগ্য।

কনসার্টজেমসডিজিটালডিসেম্বরঢাবিনগদনগরবাউলমাঠরবিন ঠাকুরলিড বিনোদনশতবর্ষ