চার ধাপ এগোলেন আফিফ

টি-টুয়েন্টি র‌্যাঙ্কিং

আইসিসির টি-টুয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ে চার ধাপ এগিয়েছেন আফিফ হোসেন। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচের দুটিতে অপরাজিত থেকে মোট ৭৯ রান করা টাইগার তারকা ব্যাটারদের তালিকায় ক্যারিয়ারসেরা ৪৭১ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে আছেন ৫৪তম স্থানে।

বিশ্রাম কাটিয়ে সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে ফিরে ২৭ বলে ২৭ রান করা মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এক ধাপ এগিয়ে ৪২তম স্থানে এসেছেন। তার রেটিং পয়েন্ট ৫০০।

বাংলাদেশের বাকি ব্যাটারদের জন্য সুখবর নেই। এক ধাপ নিচে নেমে ৩৭তম স্থানে আছেন নাঈম শেখ। জিম্বাবুয়ের সঙ্গে তিন ম্যাচে ৩৩.৬৬ গড়ে ১০১ রান করেও এক ধাপ নিচে নেমেছেন লিটন দাস। ৪৮৬ রেটিং পয়েন্টে তার অবস্থান ৪৯ নম্বরে।

মূলত সাউথ আফ্রিকার হেইনরিখ ক্লাসেন ও শ্রীলঙ্কার দাসুন শানাকা দুই ধাপ করে উপরে ওঠাতেই ব্যাট হাতে উজ্জ্বল লিটনকে স্থান ছেড়ে দিতে হয়েছে। সিরিজে না খেলা সাকিব আল হাসান দুধাপ পিছিয়ে এখন ৭০তম স্থানে।

পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম ৮১৮ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে থাকলেও তার ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন দারুণ ফর্মে থাকা সূর্যকুমার যাদব। দুধাপ উপরে উঠে ৮১৬ রেটিং পয়েন্টে টিম ইন্ডিয়ার ব্যাটার টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে পৌঁছেছেন।

বোলিং র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ দশে আসেনি পরিবর্তন। ৭৯২ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে অস্ট্রেলিয়ার পেসার জশ হ্যাজেলউড। আগের ১৪তম স্থানেই আছেন বাংলাদেশের অফস্পিনার মেহেদী হাসান। তিন ম্যাচে সাড়ে ৮ ইকোনমি রেটে ৪ উইকেট নিয়ে স্বরূপে না থেকেও দুধাপ উন্নতি হয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমানের, আছেন ৩১তম স্থানে।

হারারেতে নাসুম আহমেদের এক ওভারে ৩৪ রান তুলে নেন জিম্বাবুয়ের রায়ান বার্ল। ২ ওভারে ৪০ রান খরচ করা নাসুমের বাজে পারফরম্যান্সের প্রভাব র‌্যাঙ্কিংয়ে পড়েছে। পাঁচ ধাপ নেমে তিনি এখন ২১তম স্থানে, রেটিং পয়েন্ট ৫৮৪।

তিন ধাপ নেমে সাকিব বোলিংয়ের ২৭তম ও শফিফুল ইসলাম ৫০তম স্থানে। পেস অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের এক ধাপ অবনতি হয়েছে, ৮৪তম স্থানে নেমে গেছেন।

অলরাউন্ডার র‌্যাঙ্কিংয়ে ২৩২ রেটিং পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থান ধরে রেখেছেন সাকিব। শীর্ষে আফগানিস্তানের মোহাম্মদ নবী, রেটিং পয়েন্ট ২৬৭।

বিজ্ঞাপন

আইসিসিআফিফটি-টুয়েন্টিবাংলাদেশরিয়াদর‌্যাঙ্কিংলিড স্পোর্টসসাকিব