আবারও শাস্তির মুখে সাকিব?

অনলাইন বেটিং সাইট বেটউইনারের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান বেটউইনার নিউজের দূত হিসেবে বাংলাদেশের শীর্ষ তারকা সাকিব আল হাসান চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। মঙ্গলবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে জানিয়েছেন খবরটা। এরপর থেকেই বিষয়টি নিয়ে চলছে বিতর্ক। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন সরাসরিই জানিয়ে দিলেন, চুক্তি হয়ে থাকলে এটি দেশের আইন ও বোর্ডের নীতি পরিপন্থী।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নাজমুল হাসান বিসিবির চতুর্থ বোর্ড সভা শেষে মিরপুরে সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন। সাকিব ইস্যুতে বললেন, ‘প্রথম কথা হচ্ছে আমাদের অনুমতি নেয়ার প্রশ্নই ওঠে না। কারণ আমরা অনুমতি দিবই না। যদি বেটিং কিছু হয়ে থাকে তাহলে অনুমতি তো দিবই না। এটার মানে হচ্ছে, সাকিব আমাদের কাছে অনুমতি চায়নি।’

‘আদৌ চুক্তিটা করেছে কিনা এটাও তো আমার জানতে হবে। আজকের মিটিংয়ে কথাটা উঠেছিল। আমরা বলেছি এটা কোনোভাবেই সম্ভব না, এটা কীভাবে হয় তাড়াতাড়ি বের করো। হলে জানতে চাও, নোটিশ পাঠাও, এটা তো কোনোভাবেই বোর্ড এলাউ করবে না।’

‘যদি বেটিংয়ের সাথে কোনোরকম কোনোকিছুর যোগসূত্র থাকে, তাহলে কখনোই এলাউ করবো না। চুক্তিটা নাও তো হতে পারে এমন একটা কথা এসেছে বোর্ডে, তাহলে তো আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি না। বোর্ডের অবস্থান পুরোপুরি পরিষ্কার, এটা কোনোভাবেই সম্ভব না।’

‘যদি সত্যি হয়ে থাকে বোর্ডের যা যা করার অবশ্যই করবে। আমাদের দেশের আইন পারমিট করে না। বড় ইস্যু। ফেসবুক পোস্টের উপর নির্ভর না করে আমরা তদন্ত করছি। বোর্ডের যা যা করার অবশ্যই করবে।’

সাকিবের কাণ্ডে হতবাক সবাই। জুয়াড়ির সঙ্গে যোগাযোগের তথ্য গোপন করে এক বছর নিষিদ্ধ হওয়া ক্রিকেটার কীভাবে আবার বেটিং সাইটকে প্রমোট করেন সেটি মেলাতে পারছেন না কেউ। চুক্তির বিষয়টি প্রকাশ হওয়ার পর সমালোচনার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

বিজ্ঞাপন

নাজমুল হাসানবিসিবিবেটিংলিড স্পোর্টসসাকিব