মিলান কুন্ডেরার গল্পে আলোচিত সব সিনেমা

মঙ্গলবার প্রয়াত হয়েছেন খ্যাতিমান চেক সাহিত্যিক মিলান কুন্ডেরা! লেখকের মৃত্যুর পর তার কাজগুলো নতুন করে আলোচনায়। কালজয়ী এই লেখকের উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি হয়েছে কিছু সিনেমাও। জেনে নিন সিনেমাগুলো সম্পর্কে:

নোবডি উইল লাফ: ১৯৬৫ সালের এই ছবিটি একজন শিল্প ইতিহাসবিদকে নিয়ে যিনি মানুষকে কঠিন সত্য জানাতে গিয়ে সমস্যায় পড়েন। ছোট একটি মিথ্যা বলতে গিয়ে তিনি এমন এক পরিস্থিতিতে পড়েন যা থেকে নিষ্কৃতি পাওয়ার উপায় নেই।

দ্য জোক: ১৯৬৯ সালের এই ছবিতে তুলে ধরা হয়েছে পঞ্চাশের দশকের কাহিনী। জ্যানকে তার সহ শিক্ষার্থীরা কমিউনিস্ট পার্টি এবং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করেছিলেন, কারণ তিনি তার প্রেমিকাকে একটি রাজনৈতিকভাবে ভুল নোট পাঠিয়েছিলেন। পনের বছর পর, তিনি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা একজনের স্ত্রী হেলেনাকে প্রলুব্ধ করে তার প্রতিশোধ নেওয়ার চেষ্টা করেন।

দ্য আনবিয়ারেবল লাইটনেস অফ বিয়িং: মিলান কুন্ডেরার একই নামের উপন্যাস অবলম্বনে তৈরি হয়েছে ১৯৮৭ সালের এই ছবি। কাউফম্যানের এই ছবিটিতে ১৯৬৮ সালে প্রাগের বসন্ত এবং পরবর্তীতে চেকোস্লোভাকিয়ায় সোভিয়েত আক্রমণের পটভূমিতে তুলে ধরা হয়েছে। ছবির গল্পের কেন্দ্রে রয়েছেন একজন চেক সার্জন (ডে-লুইস)। তার প্রেম ও কামনা দেখানো হয়েছে। পাশাপাশি দেখানো হয়েছে মিলিটারি ক্র্যাকডাউন এবং রাস্তার সহিংসতার বাস্তব ফুটেজ। হাস্যরসাত্মক চরিত্রকে নিয়ে ভয়ানক গল্প বোনা হয়েছে। এই ছবির সিনেমাটোগ্রাফার নিকভিস্ট একাডেমি পুরস্কারের মনোনয়ন অর্জন করেছিলেন।

মিলান কুন্ডেরা: ফ্রম দ্য জোক টু ইনসিগনিফিকেন্স: এটি অবশ্য কুন্ডেরার কোনো গল্প অবলম্বনে তৈরী হয়নি। বরং মিলান কুন্ডেরার জীবন নিয়ে তৈরি হয়েছে এই ডকুমেন্টারি। যেখানে রহস্য মানব মিলান কুন্ডেরাকে তুলে ধরা হয়েছে। ৩০ বছরে তিনি কোনো সাক্ষাৎকার দেননি। জনসমক্ষে উপস্থিত হন না। তাই তার সম্পর্কে জানার কৌতূহল ভক্তদের অপরিসীম। ডকুমেন্টারিটিতে মিলান কুন্ডেরার সব বড় কাজগুলো এবং সেগুলোর থিম সম্পর্কে জানা যায়।

পৃথিবীর অন্যতম জনপ্রিয় লেখক মিলান কুন্ডেরা। প্রধানত চেক ভাষায় লিখলেও তার কিছু বই ফরাসিতেও লেখা। তবে তার রচনা প্রায় চল্লিশের অধিক ভাষায় অনূদিত হয়েছে। তার লেখা প্রথম উপন্যাস ‘ঠাট্টা’ (জোকার) প্রকাশিত হয় ১৯৬৭ সালে। তবে পৃথিবীব্যাপী সবচেয়ে আলোচনার জন্ম দেয় ‘অস্তিত্বের অসহনীয় লঘুতা’ উপন্যাসটি। এছাড়াও ‘জীবন অন্য কোথাও’ (লাইফ ইজ এলসহোয়ার), ‘আইডেন্টিটি’, ‘দ্য বুক অফ লাফটার অ্যান্ড ফরগেটিং’- পৃথিবী বিখ্যাত বইগুলো তার লেখা।

১৯২৯ সালের ১ এপ্রিল চেকস্লাভাকিয়ার ব্রানোতে কুন্ডেরার জন্ম। ১৯৭৫ সালে নিজ দেশের সরকারের সাথে মতানৈক্য তৈরী হয়। তার লেখা উপন্যাস গণপাঠাগারে নিষিদ্ধ করা করা হয়। এরপর তিনি সে বছরেই চেকোস্লোভাকিয়া ত্যাগ করেন। ১৯৮১ সালে ফ্রান্সের নাগরিকত্ব গ্রহণ করে প্যারিসেই স্থায়ী বসবাস শুরু করেন কুন্ডেরা।

ইতিহাসকুন্ডেরামিলানমিলান কুন্ডেরালিড বিনোদনসিনেমা