পাকিস্তানের ফেসবুক ফ্রেন্ডকে বিয়ে করার পর দেশে ফিরছেন ভারতীয় নারী

দেশে দুই সন্তান ফেলে প্রেমের টানে ফেসবুক ফ্রেন্ডকে বিয়ে করতে চলতি বছরই পাকিস্তানে যান ভারতীয় নারী আঞ্জু। এরপর ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে নাম পরিবর্তন করে ফাতিমা রেখে প্রেমিক নাসরুল্লাহকে বিয়ে করেন তিনি। তবে বিয়ের তিন মাস পর আবার ভারতে ফিরে আসছেন আঞ্জু।

এনডিটিভি জানিয়েছে, চলতি বছর জুলাই মাসে ৩৪ বছর বয়সী দুই সন্তানের জননী ভারতীয় নারী আঞ্জু তার ফেসবুক বন্ধু নাসরুল্লাহকে বিয়ে করার জন্য দেশ ছেড়ে পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়ার একটি প্রত্যন্ত গ্রামে চলে যান। পাকিস্তানি মুসলিম প্রেমিককে বিয়ে করার জন্য তিনি ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন এবং নাম পরিবর্তন করে ফাতিমা রাখেন। তবে ভিসা সংক্রান্ত জতিলতার কারণে সেখানে আটকে পড়েন তিনি। অবশেষে সেই জটিলতা দূর হওয়ায় দেশে ফিরছেন তিনি।

এই বছর আগস্টে পাকিস্তান থেকে ফাতিমার ভিসার মেয়াদ এক বছর বাড়িয়ে দেওয়া হয়। তার পাকিস্তানি স্বামী নাসরুল্লাহ জানান পাকিস্তান সরকার ছাড়পত্র প্রদানের পর দেশে ফিরে আসবেন ফাতিমা। তিনি বলেন, আমরা ইসলামাবাদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছ থেকে এনওসি (অনাপত্তি শংসাপত্র) এর জন্য অপেক্ষা করছি যার জন্য আমরা ইতিমধ্যেই আবেদন করেছি। প্রক্রিয়াটি একটু দীর্ঘ এবং এতে সময় লাগে।

অঞ্জু ওরফে ফাতিমা একেবারেই ভারত চলে যাচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে নাসরুল্লাহ বলেন, ভ্রমণের জন্য সকল নথিপত্র সম্পন্ন হওয়ার সাথে সাথে অঞ্জু ভারত-পাকিস্তান সীমান্তের ওয়াঘা বর্ডার পেরিয়ে ভারতে চলে যাবেন। ভারতে তিনি তার সন্তানদের সাথে দেখা করার পর আবার পাকিস্তানে ফিরে আসবেন। তিনি অবশ্যই ফিরে আসবেন কারণ পাকিস্তান এখন তার বাড়ি।

২০১৯ সালে ফেসবুকে বন্ধু হওয়ার পর গত ২৫ জুলাই ৩৪ বছর বয়সী ভারতীয় নারী অঞ্জু তার ২৯ বছর বয়সী পাকিস্তানি ফেসবুক বন্ধু নাসরুল্লাহকে বিয়ে করে পাকিস্তানে তার বাড়ি খাইবার পাখতুনখোয়ার আপার দির জেলায় চলে যান। অঞ্জু এর আগে ভারতের রাজস্থানে বসবাসকারী অরবিন্দকে বিয়ে করেছিলেন। তাদের একটি ১৫ বছরের একটি মেয়ে এবং ৬ বছরের একটি ছেলে রয়েছে।

পাকিস্তানফেসবুক ফ্রেন্ডকে বিয়েভারত