ভারত থেকে ৪১ কানাডীয় কূটনীতিক প্রত্যাহার

খালিস্তানি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাকে হত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৈরি হয়েছে ভারত-কানাডা দ্বন্দ্ব। এবার এই দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে ৪১ জন কূটনীতিককে ভারত থেকে দেশে ফিরিয়ে নিচ্ছে কানাডা।

সংবাদ মাধ্যম ডয়েচ ভেলের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল ২০ অক্টোবর বৃহস্পতিবার কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলানি জলির জানিয়েছেন, ভারত থেকে ৪১ জন কানাডার কূটনীতিককে দেশে ফেরানো হচ্ছে। এছাড়াও তাদের আরও ৪২ জন সহযোগী কানাডায় ফিরে যাচ্ছেন। ভারতের হুমকির কারণে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে কানাডা।

জলি বলেছেন, ভারত হুমকি দিয়েছে, কূটনীতিকদের উপর থেকে রক্ষাকবচ তুলে নেওয়া হবে। এই অবস্থায় কোনো দেশই নিজেদের কূটনীতিকদের অন্য দেশে রাখতে পারে না। কানাডা সে কারণেই কূটনীতিদের ফেরাতে বাধ্য হচ্ছে। বস্তুত, ভারতে সব মিলিয়ে ৬২জন কানাডার কূটনীতিক আছেন। তার মধ্য থেকে ৪১ জনকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে এবং বাকিরা ভারতেই থাকছেন। তাদের রক্ষাকবচ আছে বলেই জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

কানাডার এই পদক্ষেপের জবাবে ভারত জানিয়েছে, কানাডা ভারতীয় কূটনীতিকদের দেশে ফেরার নির্দেশ দেওয়ার পরেই ভারত কানাডার কূটনীতিকদের ডেকে পাঠিয়েছিল। ফলে চরম পদক্ষেপ কানাডাই আগে তুলেছে। কানাডায় ঢুকে নিজ্জরকে হত্যার যে অভিযোগ তারা করছে, ভারত তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলে প্রথম থেকেই দাবি করছে। কিন্তু কানাডা তা মানতে রাজি নয়।

মূলত এই বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে মাস দুয়েক আগে। কানাডার নাগরিকত্ব নেওয়া ভারতীয় বংশোদ্ভুত শিখ হারদীপ সিং নিজ্জার কানাডার ভ্যাংকুভারের কাছে গুরুদ্বারের সামনে নিহত হন। এরপর কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে ঘোষণা করেন, ভারত এজেন্ট পাঠিয়ে এই কাজ করেছে। পরে ভারত বিষয়টি সম্পূর্ণ অস্বীকার করে।

কানাডাখালিস্তানভারতভারত-কানাডা দ্বন্দ্বহারদীপ সিংহারদীপ সিং নিজ্জার