মালয়েশিয়ার জালে ৬ গোল বাংলাদেশের

ফিফা প্রীতি ম্যাচে মালয়েশিয়াকে ৬-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে বাংলাদেশ নারী দল। র‍্যাঙ্কিংয়ে ৬১ ধাপ এগিয়ে থাকা প্রতিপক্ষকে মাটিতেই নামিয়েছেন সাবিনা-মারিয়ারা। আঁখি খাতুন দুটি গোল করেন। অধিনায়ক সাবিনা খাতুন, সিরাত জাহান স্বপ্না, মনিকা চাকমা ও কৃষ্ণা রানি সরকারের থেকে এসেছে একটি করে গোল।

বৃহস্পতিবার কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ম্যাচের প্রথম মিনিটেই দারুণ আক্রমণে ওঠে বাংলাদেশ। অতিথি বক্সে ঢুকে মিডফিল্ডার সানজিদা আক্তার ডানপ্রান্ত থেকে কোণাকুণি শট নেন। সেটি আটকে যায় মালয়েশিয়া গোলরক্ষক মাজলানের গ্লাভসে।

তৃতীয় মিনিটে গোলের সুবর্ণ সুযোগ নষ্ট করেন স্বাগতিক অধিনায়ক সাবিনা খাতুন। সানজিদার বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে গোলরক্ষককে একা পেয়েছিলেন, পোস্টের অনেক উঁচুতে ভলি করে আনেন হতাশা।

ষষ্ঠ মিনিটে মালয়েশিয়া গোলরক্ষককে একা পেয়েছিলেন কৃষ্ণা রানি সরকারও। তার নিচু শট ঠেকিয়ে দেন মাজলান। অফসাইডের বাঁশিও বেজেছে সেসময়।

বাংলাদেশ নবম মিনিটে কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পেয়ে যায়। মারিয়া মান্ডার কর্নার কিকে ফাঁকায় বল পান আঁখি খাতুন। ডান পায়ের আলতো ছোঁয়ায় জালে জড়িয়ে দেন। লাল-সবুজদের এনে দেন লিড।

তিন মিনিট পর ব্যবধান দ্বিগুণ হতে পারত। সহজ সুযোগ হাতছাড়া করেন সানজিদা। ১৫তম মিনিটে কৃষ্ণা প্রতিপক্ষ বক্সে ঢুকে আরেকটি সম্ভাবনা তৈরি করলেও কাজে লাগাতে পারেননি।

ম্যাচের ১৮ মিনিটে পরপর দুবার গোলের সুযোগ হাতছাড়া করেন সাবিনা। প্রথমে তার শট গোলরক্ষক ঝাঁপিয়ে ঠেকান, কিন্তু বল বিপদমুক্ত করতে পারেননি। ফিরতি বলে শট নেন সাবিনা, বল অল্পের জন্য পোস্ট ঘেঁষে চলে যায়।

২৬তম মিনিটে সাবিনার গোলেই বাংলাদেশকে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায়। পাল্টা আক্রমণে বল পেয়ে ক্ষিপ্রগতিতে দৌড়ে যান তারকা স্ট্রাইকার। গোলরক্ষক সামনে ঝাঁপিয়ে বল ধরার চেষ্টার মুহূর্তে তাকে ডানপাশ দিয়ে কাটিয়ে নিচু শটে লক্ষ্যভেদ করেন অধিনায়ক।

বাঘিনীদের তৃতীয় গোলেও ভূমিকা রাখেন সাবিনা। তার কর্নার শটে বল পান মারিয়া মান্ডা। মারিয়ার সঙ্গে বল দেয়া-নেয়া করে সাবিনা বক্সের দিকে কিক নেন। আবারও ডান পায়ের ছোঁয়ায় ৩০ মিনিটে আঁখি খাতুন নিশানাভেদ করেন।

ম্যাচের ৩৭ মিনিটে প্রথমবার পরীক্ষার সম্মুখীন হন স্বাগতিক গোলরক্ষক রূপনা চাকমা। বক্সের সামান্য বাইরে অতিথি অধিনায়ক স্টেফির কিকে বল পান জেসিয়া। তার শট দারুণভাবে ঠেকিয়ে দেন রূপনা।

প্রথমার্ধের নির্ধারিত সময়ের শেষ মিনিটে মাসুরার বাড়িয়ে দেয়া বল পান সাবিনা। গোলরক্ষককে সামনে পেয়ে নিজে শট না নিয়ে ডান দিকে থাকা সিরাত জাহান স্বপ্নার দিকে পাস দেন। ফাঁকা জালে বল জড়িয়ে স্বপ্না গোলের হালি পূর্ণ করেন।

যোগ করা সময়ের প্রথম মিনিটে কৃষ্ণার উঁচু শট বারে লেগে না ফিরলে বিরতির আগে পাঁচ গোলের লিড পেতে পারত বাংলাদেশ!

দ্বিতীয়ার্ধেও আক্রমণের ধারাবাহিকতা ধরে রাখে বাঘিনী দল। ৫০ মিনিটে বক্সের সামান্য বাইরে মারিয়া মান্ডার বাঁ-প্রান্ত থেকে নেয়া কিকে হেড করেন সানজিদা। বল সামান্যের জন্য জালে ঢোকেনি।

বিরতির পর কিছুটা গোছানো ফুটবল খেলতে শুরু করে মালয়েশিয়া। রক্ষণ সামলে মাঝে মধ্যে আক্রমণও করেছে।

ম্যাচের ৬৭ মিনিটে বক্সের ভেতর বল পেলেও জটলার মধ্যে পড়েন মনিকা চাকমা। পরপর দুবার কিক নিলেও প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডাররা তা প্রতিহত করেন। এ সময় মালয়েশিয়ার দুই ফুটবলার শুয়ে পড়ে বল নিজেদের দখলে রাখার সংগ্রাম করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। তৃতীয়বারের চেষ্টায় মনিকা বল জালে পাঠান।

সাত মিনিট পর প্রতিপক্ষের দুর্বল রক্ষণে ঋতুপর্ণা চাকমার বাম প্রান্ত থেকে নেয়া ক্রসে আসা বল হেডে জালে জড়ান কৃষ্ণা।

বাকি সময়জুড়েও একের পর এক আক্রমণে মালয়েশিয়াকে নাস্তানাবুদ করতে থাকে বাংলাদেশ। পরে আর গোল পাওয়া হয়নি যদিও। ৬-০তেই বাজে শেষের বাঁশি।

বিজ্ঞাপন

আঁখিকৃষ্ণাফিফা ফ্রেন্ডলিবাংলাদেশ মেয়েদের ফুটবলমালয়েশিয়ালিড স্পোর্টসসানজিদা