বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়নের প্রশংসা করলেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য

ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য থমাস জেডিহস্কি এবং ‘স্টাডি সার্কেল লন্ডন’ এর যৌথ আয়োজনে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টে বাংলাদেশের গণতন্ত্র এবং মানবাধিকার বিষয়ক একটি আন্তর্জাতিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের একটি কক্ষে এই সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সেমিনারে বক্তারা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের প্রধান বাণিজ্যিক অংশীদার হিসেবে বাংলাদেশের ভূমিকা, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে বাণিজ্য সম্পর্কসহ বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোকপাত করেন।

সেমিনারে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য ও ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের কর্মসংস্থান ও সামাজিক বিষয় সংক্রান্ত বাজেট নিয়ন্ত্রণ কমিটির ভাইস-চেয়ারম্যান থমাস জেডিহস্কি, ‘স্টাডি সার্কেল লন্ডন’র চেয়ারম্যান ড. সৈয়দ মোজাম্মেল আলী, বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান এবং মানবাধিকার বিষয়ক আইনজীবী ড. রায়হান রশিদ।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের ব্যবসায়িক অংশীদার হিসেবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ২০২০ সালে বাংলাদেশের মোট বাণিজ্যের ১৯ দশমিক ৫ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সাথে।

বক্তারা এসময় বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রগতির চাবিকাঠি হিসেবে পোশাক শিল্পের অবদানের কথা গুরুত্বপূর্ণ বলে উল্লেখ করেন।

তারা বলেন, বাংলাদেশের জিডিপি ২০০০ সালে ৫৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার থেকে ২০২১ সালে ৪১৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলারে পৌঁছেছে। মাত্র দুই বছরে জিডিপি বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় আটগুণ।

থমাস জেডিহস্কি বলেন, বাংলাদেশ একটি কৃষিপ্রধান দেশ থেকে পূর্ণাঙ্গ শিল্পোন্নত দেশে রূপান্তরিত হচ্ছে। আজ বাংলাদেশের প্রতিটি অঞ্চলে বিদ্যুৎ ব্যবহারের সুযোগ রয়েছে।

তিনি বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য স্থিতিশীলতা ও দ্রুত উন্নয়নের বিষয়টি তুলে ধরেছেন‌ ‘দক্ষিণ এশীয় বাঘ’ এবং এই অঞ্চলের স্থিতিশীলতার স্তম্ভ হিসেবে। বলেন, অবশ্যই বাংলাদেশের এই অভূতপূর্ব উন্নয়নের জন্য বর্তমান গণতান্ত্রিক সরকারকে ধন্যবাদ দিতে হবে।

তিনি গঠনমূলক সংলাপের গুরুত্বের ওপর জোর দেন এবং বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতির প্রশংসা ও স্বাগত জানাতে হবে বলে উল্লেখ করেন। বাংলাদেশের আসন্ন সাধারণ নির্বাচন নিয়ে তিনি আত্মবিশ্বাসের সাথে বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র বিজয়ী হবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের সাথে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের দৃঢ় সম্পর্ক এবং উচ্চ পারস্পরিক বিশ্বাস রয়েছে যা একটি শক্তিশালী অংশীদারিত্বের ইঙ্গিত দেয়।

সেমিনারে অন্যান্যর মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য মেরগুলহো এর উপদেষ্টা সারাহ বুগেজা,
ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য সারানজোবা রেনিউ এর উপদেষ্টা ভেরোনিকা হোরুউডোভা, বাহ্যিক বিভাগের কর্মকর্তা লোটে পিটার্স, ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য স্টেফেনেক এর সেক্রেটারি ডায়ানা চেজোভা, সাবেক ইউরোপিয়ান পার্লামেন্ট সদস্য
পাওলো কাসাকা প্রমুখ।

ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টগণতন্ত্রমানবাধিকারসেমিনার