বদি-শাজাহানকে দিয়ে মাদক ও সড়ক নিয়ন্ত্রণে সংসদে আলোচনা

আবদুর রহমান বদিকে দিয়ে মাদক এবং শাজাহানকে দিয়ে সড়ক নিয়ন্ত্রণ কতটা সম্ভব? সংসদে এমন প্রশ্ন তুলেছেন বিরোধী দলের সাংসদ ফখরুল ইমাম। 

বিজ্ঞাপন

সোমবার এক সম্পূরক প্রশ্নে বিরোধী দলের এ সংসদ সদস্য সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে প্রশ্ন করেন: বদিকে দিয়ে মাদক নিয়ন্ত্রণ আর শাজাহান খানকে দিয়ে সড়ক কন্ট্রোল কতটা সম্ভব?

তার প্রশ্নে আরও যোগ করেন, ‘গরু-ছাগল চিনলে লাইসেন্স দেওয়া যাবে, শাজাহান খানের এই মন্তব্যে সারা দেশ তোলপাড় হয়েছিল। ওনার এক হাসি ওই সময় দেশে কী পরিস্থিতি তৈরি করেছিল। তাকে দিয়ে সরকারের কতখানি প্রতিশ্রুতি রক্ষা হবে?’

সম্প্রতি সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে শাজাহান খানের নেতৃত্বে কমিটি গঠন করার পরিপ্রেক্ষিতে এ প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন: অভিজ্ঞ মানুষ হিসেবে সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণ কমিটিতে শাজাহান খানের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে। তাকে প্রধান করার সময় উপস্থিত কারও কোনো বিরোধিতা আসেনি। এখানে তার কোনো স্মিত হাসির জন্য কী সমস্যা হয়েছে, সেটা দেখব না।

ব্যক্তি শাজাহান নয় তার অভিজ্ঞতাকে মুখ্য ধরা হয়েছে বলে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এখানে ব্যক্তি বিষয় না। দেখা হবে তারা সড়কে শৃঙ্খলা আনতে সবাই মিলে কী সুপারিশ তৈরি করেন। এই কমিটির কাছ থেকে যতটা আশা করা হচ্ছে তার থেকে ভালো প্রতিবেদনও তো আসতে পারে।’

সড়ক দুর্ঘটনারোধে সকলকে সচেতন হতে হবে বলে সংসদে আবারও দৃঢ় উচ্চারণ করেন ক্ষমাসীনদের প্রভাবশালী এ নেতা।

বলেন, আমরা ভিআইপি হয়ে উল্টো পথে যাই। এটা তো স্বাভাবিক বিষয় নয়। ভিআইপিরা অসাধারণ মানুষ, তারা যদি উল্টো পথে চলেন তাহলে সাধারণ মানুষ কী করবে?’

‘‘কেবল সড়ক বিভাজক দিয়ে সড়ক দুর্ঘটনা কমানো সম্ভব নয়। পাশে ফুটওভার ব্রিজ  থাকলেও দেখা যায়, মানুষ লাফ দিয়ে ডিভাইডারের ওপর দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছেন। মাকে বাচ্চা কোলে নিয়েও রাস্তা পার হতে দেখা যায়। সড়কে সব থেকে জরুরি হচ্ছে শৃঙ্খলা রক্ষা করা।’’

ওবায়দুল কাদেরশাজাহান খানসংসদ