ফখরুলসহ বিএনপির চার নেতার আগাম জামিন

সুপ্রিম কোর্টের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে সরকারি কাজে বাধা, অগ্নিসংযোগ ও গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগে পুলিশের করা মামলায় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ চার নেতাকে আট সপ্তাহের আগাম জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

আগাম জামিন পাওয়া অন্য নেতারা হলেন: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং আইন বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল।

বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন খানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে বৃহস্পতিবার উপস্থিত হয়ে জামিন চাইলে আদালত আট সপ্তাহের আগাম জামিন মঞ্জুর করেন। তবে এ সময়ের মধ্যে তাদের ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে আত্মসমর্পণ করতে বলা হয়েছে।

আদালতে বিএনপি নেতাদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন, জয়নুল আবেদীন, নিতাই রায় চৌধুরী, ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন ও ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল হারুনর রশিদ ও শাহীন মৃধা।

এর আগে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপির সমর্থক রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা দল ও জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের নেতাকর্মীরা গত মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টের সামনে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। একপর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর হয়।

এ ঘটনায় সরকারি কাজে বাধা দেওয়া এবং অগ্নিসংযোগ ও গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ এনে শাহবাগ থানায় মামলা করে পুলিশ। এ মামলায় ১৫ থেকে ২০ জনের নাম উল্লেখ করা হলেও অজ্ঞাতপরিচয় ৫০০ ব্যক্তিকে আসামি করা হয়।

পরবর্তীতে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইশতিয়াক আজিজ উলফাতকে গ্রেফতার করে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ।

অন্যদিকে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মেজর (অব.) হাফিজ উদ্দিন আহমেদ ও যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকনকে আজ হাইকোর্টের সামনে থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শেয়ার করুন:
আদালতফখরুলবিএনপি