প্রাণিসম্পদ খাতে ইন্টারনেট অব থিংস এর নতুন ধরনের ব্যবহার শুরু

প্রাণিসম্পদ খাতে ইন্টারনেট অব থিংস এর নতুন ধরণের ব্যবহার শুরু হয়েছে বাংলাদেশে। যুক্তরাষ্ট্রের ফুড এ- ড্রাগ এডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) এবং জার্মান এগ্রিকালচার সোসাইটি (ডিএলজি) স্বীকৃত ওই প্রযুক্তি খামার পর্যায়ে পৌঁছে দিচ্ছে সূর্যমুখি প্রাণিসেবা।

গরুর কাঁধে বা কানে নয় এবার তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির নতুন ডিভাইস স্থাপিত হচ্ছে গরুর পাকস্থলিতে।  টানা ছয় বছর পাকস্থলি থেকেই ‘বোলাস’ নামের ক্যাপসুল আকৃতির এই ডিভাইস প্রতিমুহূর্তে জানাতে পারবে গরুর স্বাস্থ্যগত সব খবরাখবর। সে খবর যেকোনো জায়গা থেকেই খামার মালিক দেখতে পাবেন মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে।

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের খামার উদ্যোক্তা আসাদুজ্জামান আফসার এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে পেতে শুরু করেছেন অভাবনীয় সুফল। বাংলাদেশে প্রযুক্তিটি এনেছে সূর্যমুখি প্রাণিসেবা নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

তারা প্রযুক্তিটি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে গড়ে তুলেছে সমন্বিত প্লাটফর্ম। তাদের সঙ্গে রয়েছে ফিনিক্স ইন্সুরেন্স।  প্রযুক্তিসেবার সঙ্গে প্রাণিসম্পদের বীমা সুবিধাও চালু করেছে তারা।

তবে সব ধরণের খামারিদের স্বার্থে সুবিধাটি আরো সহজলভ্য হওয়া প্রয়োজন, জানাচ্ছেন প্রথম ব্যবহারকারী খামারি।

ইন্টারনেট অব থিংসএফডিএডিএলজিবোলাসসূর্যমুখি প্রাণিসেবা