নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঘরমুখো হচ্ছেন মানুষ

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়ক দিয়ে নানা পন্থায় বাড়ি ফিরছেন মানুষ। দূরপাল্লার যানবাহন চলাচলে বিধিনিষেধ থাকায় খোলা ট্রাক, পণ্যবাহী ট্রাক, মোটরসাইকেলসহ ব্যক্তিগত ছোট ছোট যানবাহনে গাদাগাদি করে বঙ্গবন্ধু সেতু পার হচ্ছেন তারা। কোথাও মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। ফলে বেড়ে যাচ্ছে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি।

করোনাভাইরাসের কারণে ঈদে কর্মস্থলে থাকার কথা থাকলেও নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঘরমুখো হচ্ছেন মানুষজন। আন্তঃজেলা পরিবহণ বন্ধ থাকায় কয়েক দফা গাড়ি পাল্টে গন্তব্যে যাচ্ছেন তারা। ট্রাক, পিকআপ ভ্যান, প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস ও মোটরসাইকেলযোগে কয়েকগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে গাদাগাদি করে গন্তব্যে যাচ্ছেন অনেকে। রাতের আঁধারেও চলছে কিছু কিছু গণপরিবহন।

বিজ্ঞাপন

ঘরমুখো যাত্রীরা জানান, নির্দেশনা আমলেই নিচ্ছেন না ঘরে ফেরা মানুষজন। পরিবার পরিজন নিয়ে ঈদ করাই মূখ্য বিষয় তাদের। আন্তঃজেলা পরিবহন বন্ধ থাকায় ভোগান্তি ও ঝুঁকি দুটোই বাড়ছে বলে দাবি তাদের।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় জানান, মহাসড়কের ৫৪টি জায়গায় পুলিশের চেকপোস্ট রয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানাতে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানালেন তিনি।

গেল ২৪ ঘন্টায় বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে ২৫ হাজারেরও অধিক যানবাহন পারাপার হয়েছে। এর মধ্যে দুই শতাধিক বাসও রয়েছে। যা থেকে টোল আদায় হয়েছে ১ কোটি ৯০ লাখ টাকা।

বিজ্ঞাপন

ঈদকরোনাকরোনা ভাইরাসকরোনাভাইরাসবাড়ি