নরসিংদী পুলিশের উপর হামলায় মামলা, নিহতের ঘটনায় মামলা হয়নি

নরসিংদীর রায়পুরার চরাঞ্চলে আওয়ামী লীগের বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যানের সমর্থকদের সংঘর্ষে ৪ জন নিহত ও ওসিসহ অর্ধশতাধিক আহতের ঘটনায় থানায় দুটি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। তবে নিহতের ঘটনায় এখন পর্যন্ত পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি।

বিজ্ঞাপন

মঙ্গলবার সকালে রায়পুরা থানায় পুলিশের ওপর হামলা ও বিস্ফোরক আইনে পুলিশ বাদী হয়ে আড়াইশ গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে এই দুটি মামলা করেন।

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল হক সরকার ও বর্তমান চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম এর সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিলো। এরই মধ্যে গত শনিবার সকালে দু’ পক্ষের সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। তিনদিন যাবৎ দফায় দফায় চলতে থাকে সংঘর্ষ।

উভয় পক্ষের প্রায় শতাধিক লোক আহত হয়। অর্ধশতাধিক বাড়িঘর ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয় । সর্বশেষ সোমবার সকালে দুই পক্ষ পুনারায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে চেষ্টা চালায়।

সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) বশির উদ্দিন জানান, মঙ্গলবার সকালে রায়পুরা থানায় পুলিশের উপর হামলা ও বিস্ফোরক আইনে পুলিশ বাদী হয়ে আড়াইশ গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে এই দুটি মামলা দায়ের করেন। রায়পুরা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জহিরুল ইসলাম বাদী হয়ে বিস্ফোরক আইনে নিলক্ষার আবদুল মতিনকে প্রধান আসামী করে ৮৬ জনের বিরুদ্ধে ও উপ-পরিদর্শক ওবায়দুর রহমান বাদী হয়ে পুলিশের উপর হামলার ঘটনায় সোনাকান্দী গ্রামের তৌকির আহমেদকে প্রধান আসামী করে ১৬০ জনের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করেন।

নিহতদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সকালে নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এদিকে মঙ্গলবারও নিলক্ষার গ্রামগুলোতে উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

 

নরসিংদী হামলা