চিত্তাকর্ষক অ্যাশেজে বিতর্কের মেঘ

চলতি অ্যাশেজে যতই ধুন্ধুমার লড়াই হোক, বর্ণবিদ্বেষমূলক ঘটনার অভিযোগে ঘুম উড়ে যাচ্ছে ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের।

বিজ্ঞাপন

ম্যানচেস্টার টেস্টের দ্বিতীয় দিন এক সমর্থককে স্টেডিয়াম থেকে বের করে দেয়া হয়। তার বিরুদ্ধে বর্ণবৈষম্যমূলক মন্তব্য করার অভিযোগ উঠেছিল।

গ্যালারি থেকে শুধু মন্তব্যই নয়, জফরা আর্চারকে নিয়ে বেশ কিছু দর্শক গানও করছিলেন। যে গানে বর্ণবৈষম্যমূলক উস্কানি ছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। পুরো ব্যাপারটায় যে ইসিবি কর্মকর্তারা চিন্তিত, সেটা তারা স্বীকারও করে নিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে ইসিবির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘অ্যাশেজের চতুর্থ টেস্টে ওল্ড ট্রাফোর্ডে বেশ কিছু সমর্থকদের অসামাজিক কার্যকলাপের কথা ইসিবির কানে এসেছে। ব্যাপারটা যথেষ্ট বিরক্তিকর।’

যদিও ইসিবির পক্ষ থেকে আশ্বাস দেয়া হয়েছে, তারা বর্ণবিদ্বেষ সংক্রান্ত ইস্যু কোনোভাবে বরদাস্ত করবেন না। শুধু তাই নয়। দর্শকদের স্বাচ্ছন্দ্যের ব্যাপারেও আশ্বাস দিয়েছে ইসিবি।

সম্প্রতি ইংল্যান্ড ফুটবলও জেরবার এই বর্ণর্বিদ্বেষের ইস্যুতে। ম্যানচেস্টার সিটির রাহিম স্টার্লিং, ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মার্কাস র‍্যাশফোর্ডও এই ইস্যুতে মুখ খুলেছিলেন।

অবশ্য শুধু বর্ণবিদ্বেষের ঘটনাতেই ইংল্যান্ডে অ্যাশেজে সমস্যার শেষ নয়। স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নারকে ‘চিটার’ বলার ঘটনা চলছে বিশ্বকাপের সময় থেকে। স্যান্ডপেপার দিয়ে স্মিথ-ওয়ার্নারকে বল টেম্পারিংকাণ্ডের জন্য কটাক্ষ করতেও দেখা গেছে দর্শকদের।

ম্যানচেস্টার টেস্টের সময়ই ওয়ার্নারকে ‘চিটার’ বলতে দেখা গেছে এক দর্শককে। ওয়ার্নার অবশ্য বিষয়টাকে মজার ছলেই নিয়েছিলেন। সেই ভিডিও ভাইরালও হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সব মিলিয়ে অ্যাশেজ যতটা চিত্তাকর্ষক হচ্ছে, ততটাই বিতর্কিতও।

অ্যাশেজ ২০১৯অ্যাশেজ-২০১৯/২০লিড স্পোর্টস