গেইলের ‘ইউনিভার্স বস’ হতে আইসিসির বাধা

কেবল মহেন্দ্র সিং ধোনির হাত থেকে ‘বলিদান ব্যাজ’ প্রতীকের কিপিং গ্লাভস খুলেই ক্ষান্ত হচ্ছে না আইসিসি, তাদের নজর এবার ক্রিস গেইলের দিকে। নিজ ব্যাটে স্বঘোষিত ‘ইউনিভার্স বস’ লোগো লাগিয়ে মাঠে নামতে ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানকে নিষেধ করেছে ক্রিকেটের অভিভাবক সংস্থাটি!

বিজ্ঞাপন

নিজের ‘ইউনিভার্স বস’ ব্যাটের প্রচারণার অনুমতি চেয়ে আইসিসির কাছে অনুরোধ জানিয়েছিলেন গেইল। তখনই তাকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে, মাঠের পোশাক কিংবা ক্রীড়া সামগ্রীতে কোনভাবেই ব্যক্তিগত বার্তা দিতে পারবেন না তিনি। এটি সম্পূর্ণরূপে আইসিসির নিয়ম বহির্ভূত।

‘গ্লাভসে ব্যক্তিগত বার্তা দেয়ায় ধোনিকে ছাড় দেয়নি আইসিসি। গেইলও এমনটা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু প্রত্যাখ্যাত হয়ে বিষয়টি তিনি মেনে নিয়েছেন।’ -বার্তা সংস্থা পিটিআইকে বিষয়টি পরিষ্কার করেছে আইসিসির অভ্যন্তরীণ সূত্র।

এর আগে সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ধোনি এমন একটি গ্লাভস ব্যবহার করেছেন, যার উপর খোদাই করা ছিল ভারতীয় প্যারা মিলিটারি স্পেশাল ফোর্সের ‘আত্মত্যাগের’ চিহ্ন। ক্রিকেটের আন্তর্জাতিক নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডকে চিঠি লিখে ধোনির গ্লাভস থেকে ওই চিহ্ন সরিয়ে ফেলার অনুরোধ জানায়। আইসিসির সাফ কথা, সেনাবাহিনীর লোগো পরে খেলা সংস্থাটির নীতি বিরোধী। এমনকি এরজন্য ধোনিকে শাস্তির মুখোমুখি করা হতে পারে। তার এ ধরনের আচরণ আইসিসির চুক্তি ভঙ্গের সামিল।

ধোনির সেই বিষয়টি নিয়ে আইসিসির একই সূত্র থেকে বলা হয়েছে , ‘এটা মিলিটারি প্রতীকের বিষয় নয়। বিষয় পানির মতো পরিষ্কার যে, আপনি কোনো ব্যক্তিগত বার্তা দিতে পারবেন না। গেইলকে যদি সেই অনুমতি দেয়া হয়, তাহলে ধোনি কী দোষ করল?’

‘এর আগে মঈন আলি ‘ফ্রী প্যালেস্টাইন’ নামের এক রিস্ট ব্যান্ড পরে মাঠে নামার অনুমতি চেয়েছিল। যেটি পরিষ্কারভাবেই রাজনৈতিক একটি বার্তা। আগেও আমরা এটি গ্রহণ করিনি। এখনো করবো না। এমনকি জার্সিতে ‘ভালোবাসি’ লিখেও আপনি মাঠে নামতে পারবেন না!’

বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে না হলেও দ্বিপাক্ষিক সিরিজগুলোতে দল ও খেলোয়াড়দের জন্য এসব সুযোগ থাকছে। এর আগে যেমন পুলওয়ামা আক্রমণে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য দাতব্য কাজের অনুমতি পেয়েছে ভারত। তেমনি ক্যান্সারে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ‘জেন ম্যাকগ্রা’ ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে পিঙ্ক টেস্ট আয়োজনেরও অনুমতি দিয়েছে আইসিসি!

আইসিসিওয়েস্ট ইন্ডিজগেইলবিশ্বকাপ-২০১৯