‘ইউনিক স্টেডিয়ামে’ জয়ে শুরু চান সাকিব

সিলেট থেকে: চারদিকে সবুজের সমারোহ। স্টেডিয়ামের পরিবেশটা দারুণ। শহরের হোটেলগুলোও ভারি সুন্দর। এসব দেখে ঢাকা ডায়নামাইটসের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান সিলেট স্টেডিয়ামকে দেশের ভেতর ‘অদ্বিতীয়’ বলে বলে ঘোষণা দিয়ে দিলেন। সঙ্গ এও বলে গেলেন, প্রথম ম্যাচে জয় ছাড়া কিছু ভাবছে না তার দল।

‘সিলেট আমার সবসময় ফেভারিট ভেন্যুর মধ্যে একটা। কারণ জায়গাটা খুব সুন্দর। ঘুরে বেড়ানোর মতো জায়গা আছে। সুন্দর সুন্দর হোটেল আছে। স্টেডিয়ামটা দেখতেও বিদেশি স্টেডিয়ামের মতো। যেটা আমার কাছে মনে হয় আমাদের দেশে ইউনিক। এখন মাঠের খেলাটা আমাদের ভাল করে খেলতে হবে।’

২০১৩ সালে সিলেটে বিজয় দিবস টি-টুয়েন্টি টুর্নামেন্ট খেলেছিলেন সাকিব। সেই টুর্নামেন্ট খেলেছিলেন জাতীয় দলে থাকা মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও সৌম্য সরকারও।

সবমিলিয়ে ‘প্রিয় ভেন্যু’তে সাকিবের খেলতে আসা হয়েছে খুব কম। আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেলেও হয় না আন্তর্জাতিক ম্যাচ। সিলেটের সঙ্গে সাকিবের দূরত্ব ঘোচানোর উপলক্ষ এনেছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। প্রথমবারের মতো বিপিএল শুরু হচ্ছে সিলেট থেকে।

শনিবার বিপিএলের পঞ্চম আসরের উদ্বোধনী ম্যাচেই সাকিবের ঢাকা নামছে সাব্বির-নাসিরদের নিয়ে গড়া স্বাগতিক দল সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে। ম্যাচের সব টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে দুদিন আগে।

‘সিলেটের সাথে অবশ্যই বড় একটা ম্যাচ হবে। আমি আশা করি স্টেডিয়ামভর্তি দর্শক থাকবে। খুব ভাল একটা ম্যাচ হবে। দর্শকরা উপভোগ করতে পারবে। আমি চাই আমরা যেন ভাল করতে পারি এবং জিততে পারি। এজন্য সব কাজগুলো ঠিকঠাক করা লাগবে।’ বলেন সাকিব।

বিপিএলের গত আসর হয়েছিল ঢাকা ও চট্টগ্রামে। এবার যোগ হয়েছে সিলেট। বিপিএল সারা দেশে ছড়িয়ে পড়াকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন সাকিব আল হাসান, ‘হোম অ্যান্ড অ্যাওয়ে সব জায়গায় থাকলে বিপিএলটা আরও বেশি ভাল হতো। যেহেতু একটা ভেন্যু বেশি হল, পরের বছর আরও একটা বা দুইটা ভেন্যু যদি বাড়ে বিপিএলটা বড় হবে এবং দেশের ক্রিকেটের জন্য আরও ভাল হবে। কে কোন টিমের জন্য চিয়ার করল এটা তো আমাদের খেলোয়াড়দের জন্য অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। তবে আমরা এও জানি মাঠের কাজটা ঠিকমতো করতে হবে। আমরা আসলে ওটা নিয়েই ফোকাস করছি।’

ছবি: বিসিবি

বিজ্ঞাপন

বিপিএল-২০১৭সাকিব