চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

৭০ শতাংশ কার্যকর অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিন

ইংল্যান্ডের অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির তৈরি করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন করোনাভাইরাসের লক্ষণ ৭০ শতাংশ পর্যন্ত কমানোতে সক্ষমতা দেখিয়েছে। বড়মাপের এক পরীক্ষণে এমন ফলাফল দেখা গেছে।

এটি একই সঙ্গে বিজয় ও হতাশার বিষয়, কারণ ফাইজার ও মর্ডানার ভ্যাকসিন ৯৫ শতাংশ কার্যকারিতা দেখিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন অনেক সুলভমূল্যে মিলবে। সেটা সংরক্ষণ করা সহজ হবে এবং বিশ্বের যে কোনো প্রান্তে অন্য দুটি ভ্যাকসিন থেকে সহজে পৌঁছানো যাবে। তাই নিয়ন্ত্রকদের অনুমোদন পেলে করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে তা তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলেই ধারণা করা হচ্ছে।

যেকোনো ভ্যাকসিন তৈরির দশকব্যাপী প্রক্রিয়া ১০ মাসে সম্পন্ন করেছেন অক্সফোর্ডের গবেষকরা।  যুক্তরাজ্য সরকার ১০০ মিলিয়ন ডোজ প্রিঅর্ডার করেছে তাদের ভ্যাকসিনের। যেটা রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা দিবে ৫০ মিলিয়ন মানুষকে।

বিজ্ঞাপন

২০ হাজার স্বেচ্ছাসেবী এই পরীক্ষণে অংশ নেয়, তার অর্ধেক যুক্তরাজ্যের এবং বাকি অর্ধেক ব্রাজিলের। যারা দুই ডোজ ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের মাত্র ৩০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন আর ডামি ইনজেকশন গ্রহীতাদের ১০১ জনকে আক্রান্ত পাওয়া গেছে। তাই বলা যায় ভ্যাকসিনটি ৭০ শতাংশ সুরক্ষা দিয়েছে।

তবে যাদের প্রাথমিকভাবে অর্ধেক ডোজ দেওয়া হয়েছিলো এরং পরে পূর্ণ ডোজ দেওয়া হয়েছিলো সেসব স্বেচ্ছাসেবীদের উপর এটা ৯০ শতাংশ কার্যকর ছিলো। যদিও এই পার্থক্যটা কেন হলো তা এখনো পরিস্কার নয়।

এরই মধ্যে ৪ মিলিয়ন ডোজ তৈরি হয়ে গেছে যুক্তরাজ্যে সরবরাহ করার জন্য। আরও ৯৬ মিলিয়ন বন্টন করার জন্য তৈরি। কিন্তু কিছুই করা হবে না যতক্ষণ না নিয়ন্ত্রকরা ভ্যাকসিনটির নিরাপত্তা, কার্যকারিতা এবং উচ্চমান বজায় রেখে উৎপাদন করা হয়েছে তা নিশ্চিত করবে। সামনের সপ্তাহে সেসব করা হবে।

যুক্তরাজ্য অভূতপূর্ব গণ টিকাদান অভিযানের ‘গো বাটনে’ চাপ দিতে প্রস্তুত যা বার্ষিক ফ্লু বা শৈশবকালীন টিকাদান কর্মসূচিকেও ছোট করে দিবে।

সেবাদানকারী সংস্থার বাসিন্দা ও কর্মীরা প্রথমে ভ্যাকসিন পাবেন। তারপরে পাবেন স্বাস্থ্যসেবাকর্মীরা এবং ৮৫ বছরের বেশি বয়সীরা। তারপর আস্তে আস্তে কমবয়সীদেরকে দেয়া হবে ভ্যাকসিন।