চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

৬৬ প্রেক্ষাগৃহ চালু, ভালো ছবির অভাবে বন্ধ বড় প্রেক্ষাগৃহগুলো

সাত মাস বন্ধ থাকার পর শুক্রবার সারাদেশে মোট ৬৬ টি প্রেক্ষাগৃহ চালু হয়েছে…

দেশে করোনা সংক্রমণ রুখতে গেল ১৮ মার্চ থেকে সরকারি নির্দেশনায় বন্ধ হয়ে যায় সব প্রেক্ষাগৃহ। ৭ মাস পর স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) থেকে খুলে দেয়া হয় প্রেক্ষাগৃহ। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বড় বড় প্রেক্ষাগৃহগুলো বেশিরভাগই বন্ধ। 

প্রদর্শক সমিতির সাবেক নেতারা চ্যানেল আই অনলাইনকে চূড়ান্ত হিসেব জানিয়ে বলেন, সাত মাস বন্ধ থাকার পর শুক্রবার সারাদেশে মোট ৬৬ টি প্রেক্ষাগৃহ চালু হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে বেশিরভাগ প্রেক্ষাগৃহই ঢাকার বাইরের। সাবেক সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন উজ্জ্বল বলেন, ঢাকার বড় সিনেমা হলের মধ্যে বলাকা, মধুমিতা, শ্যামলী এগুলো খোলেনি। ভালো মানের ছবি না থাকায় তারা প্রেক্ষাগৃহ চালু করেনি।

ছবি: ইমন
পুরনো ছবি:

৪০ সিনেমা হলে নতুন ছবি (সাহসী হিরো আলম) মুক্তি পেয়েছে। যেগুলো বেশিরভাগই মফঃস্বলের হল। বাকি ২৬ সিনেমা হলে চলছে পুরাতন ছবি, যেখানে বেশিরভাগই শাকিব খানের ছবি। ঢাকার বাইরের একাধিক প্রেক্ষাগৃহের দায়িত্বে থাকা কর্তারা চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, সমসাময়িক যে কোনো ছবির চেয়ে মফঃস্বলে শাকিব খানের ছবির চাহিদা বরাবরই বেশি।

মুঠোফোনে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পুরাতন সিনেমার মধ্যে ঢালিউড কিং খান ‘শাহেনশাহ’ চলছে যশোরের মনিহারে। এছাড়া সাতক্ষীরা সদরের সংগীতায় ‘রাজাবাবু’, শ্যামনগরের লক্ষ্মীতে ‘সুপার হিরো’, সৈনিক ক্লাবে ‘ভাইজান এলো রে’ এবং রংপুরের শাপলা সিনেমা হলে চলছে ‘চালবাজ’, ফার্মগেটে ছন্দতে ‘রাজধানীর রাজা’, জয়পুরহাটের নাজমা সিনেমা হলে ‘নষ্ট ছাত্র’।

ছন্দ সিনেমা হলের ম্যানেজার শামসুদ্দিন মোহাম্মদ চ্যানেল আই অনলাইনকে বলেন, আনন্দ-ছন্দতে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই সিনেমার প্রদর্শন করা হচ্ছে। আনন্দতে হিরো আলমের ছবি চললেও মর্নিং শোতে দর্শক বেশি ছিল না। বরং ছন্দতে শাকিবের পুরাতন ছবির দর্শক বেশি ছিল। বলেন, ৬০০ আসনের ছন্দতে সবমিলিয়ে মর্নিং শোতে ৯০ জনের মতো দর্শক ছিল।

সাতক্ষীরা সদরের সংগীতা সিনেমা হল থেকে আবদুল বলেন, ভালো ছবি না থাকায় শাকিব খানের পুরাতন ছবি দিয়েই হল খুলতে হয়েছে। তিনি এ তথ্যও দিয়েছেন যে, পাশের উপজেলায় চলছে শাকিব খানের ছবি ‘সুপার হিরো’। এসব ছবি আগেই দেখেছেন দর্শক। তাই হলে খুব বেশি দর্শকদের উপস্থিতি নেই।

দেশের ঐহিত্যবাহি প্রেক্ষাগৃহ মধুমিতা হল শুক্রবার খোলেনি। প্রদর্শক সমিতির সাবেক সভাপতি ও হলটির মালিক ইফতেখার উদ্দিন নওশাদ জানান, ভালো ছবি না আসলে তিনি তার হল খুলবেন না। বললেন, যেসব ছবির কোনো কোয়ালিটি নেই সেসব ছবি চালাতে চাই না। এতে করে লাভ তো দূরে থাক, খরচের টাকা ওঠে না। প্রয়োজনে বাইরে থেকে ছবি আনবো তবুও কোনো মানহীন ছবি চালাবো না। সবচেয়ে ভালো হয় শাকিব খানের নতুন কোনো ভালো ছবি দিয়ে সিনেমা হল খুলতে পারলে।

পুরনো ছবি

রাজধানীর বলাকা ও শ্যামলী দুটি হলে যোগাযোগ করা হলে জানা যায়, ভালো ছবি না থাকায় বড় এ হল দুটি চালু হয়নি।

রাজধানীর আধুনিক সিনে থিয়েটার যমুনা ব্লক বাস্টারের পরিচালক আলমগীর আলম জানান, যমুনার সাতটি স্ক্রিনের তিনটি স্ক্রিন সকল প্রকার স্বাস্থ্যবিধি মেনে শুক্রবার থেকে খোলা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বাকিগুলো খোলা হবে। তিনি বলেন, মানুষকে হলে আনার জন্য জীবন আসল ফুল ফুটে উঠবে এমন ছবি উপহার দিতে হবে। এমন ছবি হচ্ছে না বলেই মানুষ হলে আসছে না। অনেকসময় প্রযোজকদের অনুরোধে ছবি চালাই। কিন্তু সেসব ছবি মানুষ দেখে না। ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে বাইরের ছবি চালাচ্ছি।

স্টার সিনেপ্লেক্সের বসুন্ধরা সিটি, সীমান্ত সম্ভার ও এসকেএস টাওয়ারের সবগুলো শাখা খুলবে ২৩ অক্টোবর। প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান রুহেল বলেন, দুদিন আগে থিয়েটার খোলার সরকারের চূড়ান্ত অনুমতি পেয়েছি। অনেক কর্মচারি দেশের বাড়ি চলে গেছে। তাদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা নিশ্চিত করে ২৩ অক্টোবর থেকে সিনেপ্লেক্সের সব শাখা চালু হবে।