চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিতে জাতিসংঘের প্রতি আহ্বান

একাত্তরের ২৫ মার্চ কালোরাত্রিকে গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিতে জাতিসংঘের প্রতি আহবান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাবেক ও বর্তমান নেতাকর্মীরা। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশনায় ২৫ মার্চের কালোরাত্রিতে নিহত শহীদদের স্মরণে জাতিসংঘ ভবনের সামনে আয়োজিত সমাবেশে বক্তারা এ দাবি জানায়। যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি আমিনুল ইসলামের সভাপতিত্বে স্মরণ সভায় যোগ দেন মহানগর, স্টেট আওয়ামীলীগ ও যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

এ সময় নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর মিয়া বলেন,২৫ মার্চের কালোরাত্রিতে বর্বর পাক বাহিনী যে গণহত্যা চালিয়েছিল তা ইতিহাসে নজিরবিহীন। হাজার হাজার নারী, পুরুষ, শিশু হত্যার এই দিনটিকে অবিলম্বে গণহত্যা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দিতে জাতিসংঘের প্রতি আহবান জানিয়েছেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা রফিকুর রহমান বলেন, ২৫ মার্চের গণহত্যা বাঙালী জাতিকে আরও বেশি ঐক্যবদ্ধ করেছিল। এই বর্বর হত্যাকাণ্ড সারা বিশ্ব বিবেককে নাড়া দিয়েছিল। এই শোককে শক্তিতে পরিণত করে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল সব শ্রেণীর মানুষ। নয় মাস যুদ্ধের পর আমরা পেয়েছিলাম স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশকে।

বিজ্ঞাপন

সমাপনী বক্তৃতায় সমাবেশের সভাপতি যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি আমিনুল ইসলাম বলেন, পাক বাহিনীর বর্বর হামলায় নিহত হাজার হাজার নিরীহ বাঙ্গালীর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের অংশ হিসেবে জাতিসংঘের উচিত দিনটিকে গণহত্যা দিবস ঘোষণা করা। তিনি বলেন, আমরা এই সমাবেশ থেকে জাতিসংঘের সদস্য রাষ্ট্রগুলোর কাছে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস হিসেবে ঘোষণা করাতে কার্যকর উদ্যোগ নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। আর এটি কার্যকর হলে সারা বিশ্বের নিপীড়িত মানুষের জয় হবে বলে মনে করেন তিনি।

এ সময় বক্তারা একাত্তরের গণহত্যার জন্য পাকিস্তানকে বাংলাদেশের কাছে ক্ষমা চাওয়ার দাবিও জানিয়েছেন।

সমাবেশে বক্তৃতা করেন নিউইয়র্ক স্টেট আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক ইসমাইল হোসেন স্বপন, যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রলীগ নেতা শফিকুর রহমান শাফাত, শরীফ আহমেদ, শাহরিয়ার শুভ, জুয়েল আহমেদ, দেওয়ান আলম, স্বপ্নীল খান,জাহিদ হোসাইন, রিফাত,ফুয়াদ, টিটন,তপন সরকার, জাহেদ, সাইদ, তন্ময়সহ অনেকে।

বিজ্ঞাপন