চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

১০ জনের ‘ক্ষুদে হাতির’ চাপে পিষ্ট মোহনবাগান

চট্টগ্রাম থেকে: শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্লাব কাপ টুর্নামেন্টে রোববার গ্রুপ ‘এ’তে চমক জাগিয়েছে লাওস লিগের তৃতীয় সেরা দল ইয়ং এলিফ্যান্টস। ১০ জনের দল নিয়েও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জায়ান্ট মোহনবাগানকে ২-১ গোলে হারিয়ে দিয়েছে গড়ে ২১ বছর বয়সী খেলোয়াড়দের নিয়ে সাজানো দলটি।

শত বছরের পুরনো ঐতিহ্যবাহী এক ক্লাব বনাম মাত্র চার বছর আগে গড়া এক দলের লড়াই। সময়কাল আর অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ মোহনবাগানের কাছে উড়ে যাওয়ারই কথা কচি-কাঁচাদের নিয়ে সাজানো ইয়ং এলিফ্যান্টসের! কিন্তু ছোট মরিচে কী যে ঝাল সেটাই যেন টের পেল পশ্চিমবঙ্গের জায়ান্টরা! তরুণদের নিয়ে সাজানো লাওসের ক্লাবের কাছে হেরে গেল তারা।

বিজ্ঞাপন

পাঁচ স্প্যানিশসহ মোট ছয় বিদেশি নিয়ে সাজানো মোহনবাগান শেখ কামাল আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টের তৃতীয় আসরে অন্যতম ফেভারিট। অন্যদিক কোনো বিদেশি ছাড়াই একদম তরুণদের নিয়ে প্রথমবারের মতো কোনো আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলতে এসেছে এলিফ্যান্টস। খেলা শেষের দিকে অধিনায়কের লাল কার্ড ও পেনাল্টি পেয়েও তা রুখে পাল্টা আক্রমণে গোল আদায় করে মোহনবাগানকে থামিয়ে দিয়েছে ক্লাবটি।

অথচ এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে শুরু থেকে ছিল মোহনবাগানের আক্রমণের তোড়। প্রথম ১০ মিনিটে তিন দফা সুযোগ হাতছাড়া করার পর ১৮ মিনিটে তিন স্প্যানিশের দক্ষতায় ঠিকই গোল আদায় করে নেয় মোহনবাগান।

কর্নার থেকে জোসেবা কর্তার শট ফ্রান্সিস্কো মুনোজ হেড করতে চাইলেও বল তাকে এড়িয়ে পড়ে হুলেন কলিনাসের ওলাইজোলার মাথায়। সহজ সুযোগ হেলায় হাতছাড়া করেননি স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড। মুনোজ না পারলেও ঝাঁপিয়ে গোল আদায় করে নেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

পরে আক্রমণের জোর ধরে রেখে একের পর এক তোপ শানিয়ে গেছে মোহনবাগান। কিন্তু তারুণ্যে সাজানো এক দল নিয়ে আক্রমণ প্রতিহত করে প্রতি আক্রমণে উল্টো ৪৩ মিনিটে সমতায় ফেরে লাওসের ক্ষুদে হাতিরা।

প্রায় মাঝ মাঠ থেকে বল নিয়ে আক্রমণে উঠে যান ছানতাছোনে থিনোলাথ। বল বাড়িয়ে দেন ফরোয়ার্ড সমজে কিউহানামের দিকে। তরুণ এ ফরোয়ার্ড দেখিয়েছেন দারুণ এক খেল। মোহনবাগানের দুই খেলোয়াড়কে বোকা বানিয়ে গোলরক্ষক পাশ দিয়ে বল জড়িয়ে দেন জালে।

দ্বিতীয়ার্ধে মোহনবাগানের প্রেসিং ফুটবলেও ঘাবড়ে যায়নি এলিফ্যান্টস। বরং ৭১ মিনিটে ব্যবধান প্রায় দ্বিগুণই করে ফেলেছিল ইয়ং এলিফ্যান্টসরা। ডি-বক্সের বাইরে থেকে জোড়াল এক শট ঠেকিয়ে সে যাত্রায় জাল বাঁচিয়ে দেন মোহনবাগান গোলরক্ষক।

ম্যাচ শেষ হওয়ার তিন মিনিট আগে নিজেদের ডি-বক্সে ফাউল করে লাল কার্ড দেখেন এলিফ্যান্টস গোলরক্ষক ভান্না। পেনাল্টি ডাকেন রেফারি। গোল হলেই জিতে যায় দল এমন অবস্থায় পেনাল্টি হাতছাড়া করে বসেন মিডফিল্ডার জোসেবা কর্তা। তার শট ঠেকিয়ে এলিফ্যান্টসদের বাঁচিয়ে দেন গোলরক্ষক জেসাভাথ।

পেনাল্টি হাতছাড়া হওয়ার দুঃখ ভোলার আগেই মোহনবাগানকে পরের মিনিটে স্তব্ধ করে দেন সমজে কিউহানাম। চকিত পাল্টা আক্রমণে ছানতাছোনে থিনোলাথের মাটি কামড়ানো ক্রসে দারুণ এক প্লেসিংয়ে মোহনবাগান গোলরক্ষককে দ্বিতীয়বারের মতো বোকা বানিয়ে জোড়া গোলের সঙ্গে দলেরও জয় আদায় করে নেন এলিফ্যান্টস ফরোয়ার্ড।

Bellow Post-Green View