চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

হৃদরোগে বিশ্বমানের চিকিৎসা বাংলাদেশে

জান্নাতুল বাকেয়া কেকা:

হৃদরোগে বুকে ব্যাথার সাথে মারাত্মক শ্বাষকষ্টে ভুগছেন এমন রোগীদের হার্ট দুর্বল বলে অনেক সময় বাইপাস করা সম্ভব হয় না। এমন রোগীদের সার্জিক্যাল ভেন্টিকুলার রেস্টোরেশন- এসভিআর প্রক্রিয়ায় বড় হার্ট কেটে ছোট করার উন্নত চিকিৎসা বাংলাদেশেই দেওয়া সম্ভব, দাবি দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের। স্বস্তির কথাও জানিয়েছেন দেশে চিকিৎসা নেওয়া রোগীরা।

হার্ট এ্যার্টাকের পর হার্ট বড় হয়ে যাওয়া এমন কয়েকজন রোগীর মধ্যে একজন হলেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী গোলাম রসুল। কয়েক বছর আগে হার্ট অ্যাটাকের পর বুকের ব্যথার সাথে তীব্র শ্বাষকষ্টে ভুগছিলেন তিনি। সামান্য হাঁটা চলাতেও সমস্যা হতো তার। সম্প্রতি দেশেই এসভিআর প্রক্রিয়ায় বড় হয়ে যাওয়া হার্ট কেটে ছোট করার পর স্বস্তিতে আছেন তিনি। গোলাম রসুল জানান এখন তার হাঁটা, চলা ফেরায় কোন সমস্যা হয় না।

দেশেই সেবা নেওয়া আরেক রোগী সৌদি প্রবাসী আবুল হাশেম বলেন, ‘২০০১ সালে হার্ট অ্যার্টাকের পর থেকে তীব্র শ্বাষকষ্টসহ নানা জটিলতায় ভুগছিলাম। দীর্ঘ দিন ধরে ওষুধ সেবনেও যন্ত্রণা কমেনি। দেশে এসে অপারেশনের পর এখন অনেক ভাল আছি।’

পদ্ধতি এবং দেশের সেবার মান নিয়ে ল্যাব এইড হাসপাতালের চীফ কার্ডিয়াক ডা. লুৎফর রহমান বলেন, ‘ম্যাসিভ বা বড় ধরনের হার্ট এ্যার্টাকের পর হৃদরোগীরা মৃত্যু ঝুঁকি থেকে রক্ষা পেলেও মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তাদের হৃদযন্ত্র। ২০ থেকে ২৫ ভাগ রোগীর হার্ট এ্যাটাকের পর হার্টের আকার বড় হয়ে যায় কয়েকগুন। এতে করে শ্বাষকষ্ট, অল্পতেই বুক ধরফর, চলাফেরায় অস্বস্তিসহ নানান জটিলতায় আক্রান্ত হন হৃদরোগীরা। সার্জিক্যাল ভেন্টিকুলার রেস্টোরেশন- এসভিআর প্রক্রিয়াটি সম্পর্কে  সিঙ্গাপুরের ডাক্তাদের কাছ থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছি আমরা। এখন পর্যন্ত এই প্রক্রিয়ায় ১০০ জনের চিকিৎসা দেশেই করেছি। তাদের সবাই ভাল আছেন।’

উন্নত বিশ্বেও সার্জিক্যাল ভেন্টিকুলার রেস্টেুরেশন-এসভিআর উন্নত চিকিৎসা হিসেবেই অস্ত্রপচারে বড় হার্ট কেটে ছোট করে নতুন জীবন দিচ্ছে হৃদরোগীদের।