চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

হাওরের কৃষকদের পাশে এফএও এবং জাপান

করোনাভাইরাস মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত বাংলাদেশের হাওর সম্প্রদায়ের জন্য জরুরি সহায়তা প্রদান করেছে ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচারাল অর্গানাইজেশন অব ইউনাইটেড ন্যাশনস (এফএও) এবং জাপান সরকার।

এই সহায়তা কৃষিজাত উত্পাদনশীলতা বৃদ্ধির মাধ্যমে দেশের বৃহত্তর খাদ্য সুরক্ষা নিশ্চিতে এবং করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে মূল কৃষি শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষিত করার কাজে অবদান রাখবে বলেই বিশ্বাস।

হাওর অঞ্চল বোরো ধান ও অন্যান্য ফসল যেমন ডাল, আলু, মিষ্টি আলু, চিনাবাদাম এবং সরিষা উৎপাদনের মূল ক্ষেত্র। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে শ্রমিক স্বল্পতা তৈরি হয়েছে এবং কৃষি শ্রমিকের জন্য খরচ বেড়েছে, ফলে যান্ত্রিকীকরণ বিকাশের প্রয়োজনীয়তার কথা বেশি বেশি উঠে আসছে।

কৃষকদের তাদের প্রয়োজনীয় সরঞ্জামগুলি দিয়ে সহায়তা করলে এবং নিরাপদ কাজের পরিস্থিতি তৈরি করলে চাল এবং অন্যান্য ফসল সংগ্রহ ও বাজারে আনার কাজে সহায়তা হবে।

জাপান সরকারের সহযোগিতায় এফএও নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জের হাওর অঞ্চলের ২০০০ জন কৃষকের মধ্যে ২৮৪টি কৃষিযন্ত্র বিতরণ করেছে। এসব যন্ত্রপাতির মধ্যে ছিলো ১০০টি পাওয়ার টিলার, ১০০টি লো লিফ্ট পাম্প, পাশাপাশি চাল রোপনকারী, পাওয়ার থ্রেসার এবং পাওয়ার রিপারসও রয়েছে। ২০০ কৃষক দলের হাতে এসব যন্ত্রপাতি তুলে দেওয়া হয়। প্রত্যেকটি দলে ১০ জন করে কৃষক থাকবে।

নেত্রকোনার মদন শহরে এসব যন্ত্রপাতি বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রুহুল আমিন তালুকার। উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের জাপান দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব শিরহাতা কাসুমী। রুহুল আমিন তালুকদার জাপান সরকারকে বাংলাদেশ সরকারকে যন্ত্রপাতি অনুদানের জন্য ধন্যবাদ জানান। শিরাহাতা কাসুমী বাংলাদেশের প্রতি জাপানের প্রতিশ্রুতি এবং কৃষিক্ষেত্রে তাদের সমর্থনের কথা পুনরায় নিশ্চিত করেন।

এছাড়াও জাপান সরকারের সহযোগিতায় এফএও যেসব কাজ করেছে সেগুলো হলো:

১. মাইক্রো-গার্ডিং কিট এবং নগদ স্টার্ট-আপ টাকা বিতরণ করা হয় ২০০০ পরিবারের মধ্যে।  পরিবারগুলিকে গৃহস্থালি সবজি উত্পাদন এবং আয়ের উত্পাদন সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। প্রতিটি সুবিধাভোগী আট প্রকারের উদ্ভিজ্জ বীজ, ভার্মি-কম্পোস্ট এবং প্রয়োজনীয় বাগান সরঞ্জাম পান।

বিজ্ঞাপন

২. ৩১ টি খাবারের গাড়ি সরবরাহ করা হয়।  ফুড হাইজিন ও নিরাপত্তা নিয়ে প্রশিক্ষণও দেয়া হয়।

৩. ক্ষুদ্র ব্যবসার জন্য ১০ জনকে ১৫ হাজার টাকা করে সহায়তা দেওয়া হয়।

৪. করোনাভাইরাস বিষয়ে সচেতনতা প্রচারণা চালানো হয় যেখানে ২৪০ জন অংশ নেয়। তাদের মাস্ক পরার ও দূরত্ব নিশ্চিত করার গুরুত্ব শেখানো হয়।

৫. বাজার সংযোগকে শক্তিশালী করার জন্য উত্পাদক, বিক্রেতা, ব্যবসায়ী এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ ব্যবসাকে একত্রিত করে চারটি ইভেন্টের আয়োজন করা হয়।

৬. স্থানীয় সরকারী এবং বেসরকারী সংস্থার (এনজিও) ২০০ কর্মকর্তাদের ফসল উত্পাদন, গবাদি পশু এবং মৎস্য চাষে ভাল কৃষিকাজের উপর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

৭. ৯০ জনের মধ্যে ৯০০ টি ফলের চারা বিতরণ করা হয়।

৮. আরো ৯০ জনকে দুটি করে ছাগল দেওয়া হয়।

বাংলাদেশে ভারপ্রাপ্ত অন্তর্বর্তীকালীন এফএও প্রতিনিধি জন টেলর বলেন, বাংলাদেশের মূল ধান উৎপাদনকারী ও কৃষিপ্রধান এই অঞ্চলের কৃষক এবং পরিবারগুলো উত্পাদন ও সুরক্ষা দুই দিক থেকেই উপকৃত হবেন।  তারা সেই পরিমাণ আয় করতে পারবেন যেন নিজেদেরকে এবং তাদের সম্প্রদায়কে সহায়তা করতে পারেন।

খাদ্য ও কৃষি উন্নয়নে বাংলাদেশে ধারাবাহিকভাবে সহায়তার জন্য এফএও জাপান সরকারের কাছে কৃতজ্ঞ বলেও জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন