চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

স্বপ্নের সেরা দলে মেসি-রোনালদো, ম্যারাডোনা-পেলে

করোনা মহামারীর কারণে ২০২০ সালে বাতিল হয়েছে ব্যালন ডি’অরের আসর। প্রথমবারের মতো ইউরোপ সেরার দৌড়ে এগিয়ে থেকেও কপাল পুড়েছে বায়ার্ন মিউনিখের পোলিশ স্ট্রাইকার রবার্ট লেভান্ডোভস্কির। অনুষ্ঠান না হলেও ভিন্ন এক উদ্যোগে ভক্তদের সঙ্গে যুক্ত থেকেছে ব্যালন ডি’অর প্রদানকারী ফ্রান্স ফুটবল। সমর্থকদের ভোটে সর্বকালের সেরা স্বপ্নের একাদশ নির্বাচন করেছে ম্যাগাজিনটি।

সাধারণত যেসব ক্রীড়া সাংবাদিকদের ভোটে নির্বাচিত হতেন ব্যালন ডি’অরজয়ী ফুটবলার, সেই ১৭০ সাংবাদিক এবারও ভোট দিয়েছেন, সঙ্গে যুক্ত হয়েছেন ভক্তরা। সবাই মিলে ঠিক করেছেন ব্যালন ডি’অরের সর্বকালের সেরা একাদশ।

বিজ্ঞাপন

গোলরক্ষক, রাইটব্যাক, লেফটব্যাক, সেন্টারব্যাক, অ্যাটাকিং ও ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার, সেন্টার ফরোয়ার্ড, লেফট ফরোয়ার্ড ও রাইট ফরোয়ার্ডের সমন্বয়ে নির্বাচিত হয়েছে ব্যালন ডি’অর সেরা একাদশ। দলকে সাজানো হয়েছে ৩-৪-৩ ফর্মেশনে।

সর্বকালের সেরা গোলরক্ষক নির্বাচিত হয়েছেন রাশিয়ান লেভ ইয়াসিন। সোভিয়েত ইউনিয়নের হয়ে ১৯৫৪ থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত ৭৪ ম্যাচ খেলেছেন কিংবদন্তি গোলরক্ষক।

বিজ্ঞাপন

সেরা তিন ডিফেন্ডার হয়েছেন জার্মানির ‘জার’ ফ্রেঞ্জ বেকেনবাওয়ার, ব্রাজিলের বিশ্বকাপজয়ী ফুলব্যাক কাফু ও ইতালি-এসি মিলান কিংবদন্তি পাওলো মালদিনি।

সর্বকালের সেরা মিডফিল্ডারের চারে জায়গা হয়েছে ২৫ নভেম্বর পৃথিবী চলে যাওয়া আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি ডিয়েগো ম্যারাডোনা, তার ব্রাজিলিয়ান চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পেলে, ১৯৯০ সালে জার্মানিকে বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক লোথার ম্যাথিউস ও স্পেন-বার্সেলোনা কিংবদন্তি জাভি হার্নান্দেজ।

ফরোয়ার্ডের তালিকায় যথারীতি আছেন লিওনেল মেসি, তার পর্তুগিজ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ডান-বামে আর্জেন্টাইন-পর্তুগিজ ফর্মেশনে সেন্ট্রাল ফরোয়ার্ড হিসেবে থাকবেন ব্রাজিলকে ১৯৯৮ বিশ্বকাপ জেতানো কিংবদন্তি স্ট্রাইকার রোনাল্ডো নাজারিও।

সেরা একাদশ নির্বাচন করতে গিয়ে জায়গা হয়নি অসংখ্য কিংবদন্তির। স্পেনকে বিশ্বকাপ জেতানো রিয়ালের গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াস, ফ্রান্স মহাতারকা জিনেদিন জিদান, আন্দ্রেস ইনিয়েস্তা, রোমারিও, মার্কো ফন বাস্তেন, ইয়োহান ক্রুইফ ও ইউসেবিওর মতো কিংবদন্তিরা জায়গা পাননি সর্বকালের সেরা দলে।