চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

স্টার স্পোর্টস কি শুধুই ভারতের স্বার্থ দেখে?

২০১৫ বিশ্বকাপে ‘মউকা মউকা’ বিজ্ঞাপন বানিয়ে ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছিল খেলাধুলা সম্প্রচারকারী চ্যানেল স্টার স্পোর্টস। চার বছর বাদে আরেক বিশ্বকাপেও তাদের নিয়ে সমালোচনা এতটুকু কমেনি, বরং বেড়েছে।

এবার তাদের সংযোজন ‘বাপ রে বাপ’ নামের এক বিজ্ঞাপন, যাতে ভারতের শ্রেষ্ঠত্ব ফুলিয়ে ফাঁপিয়ে দেখানো হচ্ছে প্রায় প্রতি সময়ে। একটি স্বনামধন্য চ্যানেল কীভাবে অপেশাদার আচরণ করে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের এহসান মানি।

বিজ্ঞাপন

১৬ জুন ওল্ড ট্রাফোর্ডে মুখোমুখি হবে দুই চিরবৈরী প্রতিপক্ষ ভারত-পাকিস্তান। এমনিতেই রাজনৈতিক উত্তেজনার কারণে বেশ উত্তাপ ছড়াচ্ছে দুই দলের বিশ্বকাপ ম্যাচ। তার মধ্যে আবার দুই দেশের দুই বিব্রতকর বিজ্ঞাপনে ঘি পড়ে উত্তাপ যেন হয়ে গেছে অগ্নিকুণ্ড!

দুই দেশের বিজ্ঞাপন যুদ্ধের শুরুটা স্টার স্পোর্টসের হাত ধরেই। চ্যানেলটি আবার এবারের বিশ্বকাপের সম্প্রচারকও। অন্য কোনো চ্যানেল হলে হয়তো বিষয়টা অন্যভাবে মেনে নেয়া যেত, কিংবা সমাধানও করা যেত। কিন্তু যারা বিশ্বকাপ সম্প্রচারের প্রধান সত্ত্বাধিকারী তারাই যদি একটি নির্দিষ্ট দেশের হয়ে লড়াইয়ে নেমে পড়ে তাহলে প্রশ্ন তো উঠবেই। সেক্ষেত্রে চ্যানেলটি কতটুকু পেশাদার আইসিসির কাছে তা নিয়ে দাবি তুলেছেন পিসিবি চেয়ারম্যান।

‘আমার মনে হয় আইসিসির বিষয়টি মাথায় নেয়া উচিত। স্টার বিশ্বকাপের প্রধান সম্প্রচারক। তারা তো ভারতীয় সম্প্রচারক নয়, তারা আইসিসির সম্প্রচারক। সকল দলের প্রতি তাদের নিরপেক্ষ আচরণ করা উচিত। তারা যে বিজ্ঞাপন বানালো এটা মোটেও ক্রিকেটের অংশ নয়।’

বিজ্ঞাপন

পিসিবি চেয়ারম্যানের মতে, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ এমনই এক ম্যাচ যাতে বাড়তি বিজ্ঞাপনের কোনো প্রয়োজন হয় না। দুই দলের লড়াইকে দূষিত করতে পাকিস্তান কোনো বিব্রতকর সিদ্ধান্ত নেবে না বলেও জানিয়েছেন তিনি।

মানির কথায়, ‘আপনারা পাকিস্তানের কাছ থেকে বাড়তি কিছু পাবেন না। তারা বিশ্বকাপে শুধু ক্রিকেট খেলতেই গেছে। আমরা ক্রিকেটকে সবসময়ই স্বদিচ্ছা প্রকাশের হাতিয়ার হিসেবে দেখি। সম্পর্ক উন্নয়নের রাস্তা মনে করি। আমরা বিষয়টাকে এভাবেই রাখতে চাই। এটা একটা খেলা। ভদ্রলোকের খেলা। সেটা তাই থাকা উচিত।’

দুই দলের উত্তেজনায় বাড়তি রসদ যোগাচ্ছে মহেন্দ্র সিং ধোনির ‘বলিদান’ প্রতীকযুক্ত মিলিটারি গ্লাভস। সেই প্রতীকটি ছিল ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্যারা স্পেশাল ফোর্সের প্যারাসুট রেজিমেন্টের প্রতীক।

সাউথ আফ্রিকার বিপক্ষে ধোনির হাতে সেই গ্লাভস দেখে হইচই হয়েছে অনেক। ধোনিকে গ্লাভস পড়তেও নিষেধ করে দিয়েছে আইসিসি। সবশেষ অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে ধোনির হাতে অবশ্য সেটা দেখাও যায়নি।

ধোনির গ্লাভস নিয়ে কোনো কথা বলেনি পাকিস্তান। এমনকি ভারতের বিপক্ষে ভিন্ন উদযাপন করতে চাইলেও সে বিষয়ে দলকে কড়াভাবে নিষেধ করে দিয়েছে পিসিবি। উদযাপন না করে খেলার দিকে ক্রিকেটারদের মনোযোগী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন পিসিবি প্রধান।

Bellow Post-Green View