চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

স্কটল্যান্ডের বিরুদ্ধে টাইগারদের বড় জয়

অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপে জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ। এক ম্যাচ বাকি রেখেই অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে সুপার লিগ কোয়ার্টার-ফাইনাল নিশ্চিত করল বাংলাদেশ।

রোববার কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের যুবারা ১১৪ রানে হারায় স্কটল্যান্ডকে।

জুনিয়র টাইগারদের করা ২৫৬ রানের জবাবে স্কটিশরা অলআউট হয় ১৪২ রানে।

বাংলাদেশের দেওয়া ২৫৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ভালো সূচনা করেছিলো স্কটিশ যুবারা। প্রথম উইকটে দ্রুত ৪৮ রান তুলে টাইগার যুবাদের ঘাড়ে অস্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছিলো। সেই অস্বস্তি থেকে টাইগারদের রক্ষা করেন অধিনায়ক মেহেদী হাসান মিরাজ।

মিরাজের করা ১৩তম ওভারে স্কটিশ অধিনায়ক নেইল ফ্লেককে শান্ত কাছে তালুবন্দি করে ব্যক্তিগত ২৮ রানে সাজঘরে ফেরত পাঠান। ওভারের শেষ বলে আবারো উইকেটের পতন। ব্যাটিংয়ে সেঞ্চুরি করা নাজমুল হোসেন শান্ত ফিল্ডিংয়েও কম যান না। তার সরাসরি থ্রোতে রান আউট হন ওয়াইজ শাহ।

দলীয় ৫৬ রানে আরেক স্বীকৃত ব্যাটসম্যান জনস্টোনকেও এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলে সাজঘরে ফেরান লেগ স্পিনার আরিফ।

৫৬ রানে তিন উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা স্কটিশদের জুটি গড়ার স্বপ্ন দেখায় আজিম দার ও জ্যাক ওয়ালার। তবে এই জুটিকে ৩৩ রানের বেশি করতে দেয়নি আরিফ।

শাওনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ওয়ালারকে প্যাভিলনের পথ চেনান তিনি। এরপরই আরেক লেগ স্পিনার শাওনের ঘূর্ণিতে দিশেহারা হয় স্কটিশরা। শাওন একে একে তুলে নেয় ফিনলে ম্যার্কাথ, হ্যারিস আসলাম আর র‌্যায়ান ব্রাউনকে। শেষ পর্যন্ত স্কটল্যান্ড ৪৭ দশমিক দুই ওভারে গুটিয়ে যায় মাত্র ১৪২ রানে।

Advertisement

বাংলাদেশের যুবাদের পক্ষে সালেহ আহমেদ শাওন তিনটি ও আরিফুর ইসলাম আরিফ দুটি উইকেট নেন।

এরআগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে নাজমুল হোসেন শান্তর অনবদ্য সেঞ্চুরিতে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ছয় উইকেটে ২৫৬ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোর করে জুনিয়র টাইগাররা।

টাইগারদের হয়ে নাজমুল হোসনে শান্ত ১১৩ রান, মেহেদী হাসান মিরাজ ৫১ রান ও সাইফ হাসান ৪৯ রান করেন।

তবে দিনের শুরুতে মিরাজদের অবস্থা ছিল নাজেহাল। দলীয় ১ রানের মাথায় ব্যক্তিগত রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফিরেন গত ম্যাচে দাপুটে ব্যাটিং করা পিনাক ঘোষ।

দলীয় ১৭ রানের মাথায় জুনিয়র টাইগার শিবিরে আবারো আঘাত। আলোচিত ব্যাটসম্যান জয়রাজ শেখ গাফফারের বলে ব্রাউনের কাছে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলনে ফেরান।

এরপরই দলের হাল ধরেন আরেক ওপেনার সাইফ হাসান ও নাজমুল হোসেন শান্ত। দেখেশুনে খেলে তারা দলের হয়ে ১০০ রানের জুটি গড়েন। সাইফ ৪৯ রান করে আউট হন। কিন্তু থেমে থাকেনি শান্তর ব্যাট। নাজমুল হোসেন শান্ত ১১৭ বলে ১০ চারে খেলেন ১১৩ রানের ঝকঝকে একটি ইনিংস। শান্ত এখন যুব বিশ্বকাপের সবচেয়ে বেশি রান করা ব্যাটসম্যান।

আর জুনিয়র টাইগার অধিনায়ক এই বিশ্বকাপে তুলে নেন প্রথম হাফ সেঞ্চুরি। ৪৬ বলে চারটি চারে ৫১ রান করে আউট হন মিরাজ। শান্ত অধিনায়ক মিরাজকে নিয়ে চতুর্থ উইকেটে গড়েন আরো ১০০ রানের জুটি।

শেষ দিকে সাইদ সরকারের ৫ বলে এক চার ও এক ছয়ে ১৬ রান দলকে ২৫০ রানের কোঠা অতিক্রম করায়।

এ ম্যাচেও সেরা হয়েছেন সেঞ্চুরিয়ান নাজমুল হোসেন শান্ত। বিশ্বকাপে টানা দুই ম্যাচে জয় যুবাদের শিরোপা অর্জনের ক্ষুধা আরো বাড়িয়ে দিল।