চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সৌদি আরবে বৃক্ষরোপণে বাংলাদেশ থেকে কৃষি শ্রমিক নেয়ার আহ্বান

সৌদি আরব ২০৩০ সালের মধ্যে ১০ বিলিয়ন বৃক্ষ রোপণের যে কর্মসূচি গ্রহণ করেছে তা বাস্তবায়ন করতে বাংলাদেশ থেকে কৃষি শ্রমিক নেয়ার আহবান জানিয়েছেন রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম (বার)। আল কাসিম প্রদেশের গভর্নর প্রিন্স ফয়সাল বিন মিশাল বিন সউদ বিন আবদুল আজিজ এর সাথে সাক্ষাৎকালে রাষ্ট্রদূত এ আহবান জানান।

এ সময় রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বলেন আল কাসিম প্রদেশ নানা রকম ফল, সবজি ও খেজুর উৎপাদনে অত্যন্ত প্রসিদ্ধ। এখানের বিভিন্ন কৃষি খামারে অনেক বাংলাদেশি শ্রমিক কাজ করছে। বাংলাদেশ ও সবজি উৎপাদনে পৃথিবীতে তৃতীয় স্থানে রয়েছে এবং সবজি উৎপাদন ও কৃষি কাজে দক্ষ জনশক্তি বাংলাদেশের রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

রাষ্ট্রদূত আল কাসিম প্রদেশের কৃষি খামারে বাংলাদেশ থেকে প্রয়োজনে আরও কৃষি শ্রমিক নিয়োগের আহবান জানান। এ সময় গভর্নর জানান, বাংলাদেশ থেকে ব্যবসায়ীরা এসে আল কাসিমে কৃষি পন্য উৎপাদন ও তার বানিজ্যিকীকরণ নিয়ে সম্ভাব্য আলোচনার জন্য সেখানকার চেম্বার অব কমার্সের সাথে আলোচনা করতে পারে এবং এক্ষেত্রে তার অফিসের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

আল কাসিম প্রদেশ পর্যটন ও সাংস্কৃতিক উৎসবের জন্য বিখ্যাত। রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের পর্যটন সুবিধা ও কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকত, সিলেট এর চা বাগান ও সুন্দরবনের ম্যানগ্রোভ ফরেস্টের কথা উল্লেখ করে দুদেশের মধ্যে পর্যটন বৃদ্ধির আহবান জানান। রাষ্ট্রদূত বলেন, এতে ভাতৃপ্রতিম দুদেশের মানুষের মধ্যে যোগাযোগ ও বন্ধন আরও দৃঢ় হবে।

বিজ্ঞাপন

রাষ্ট্রদূত আল কাসিমের বিভিন্ন মর্গে থাকা বাংলদেশিদের মৃতদেহ বাংলাদেশে দ্রুত ফেরত পাঠানোর ক্ষেত্রে সহায়তা চাইলে গভর্ণর তাৎক্ষণিকভাবে তার অফিসকে সংশ্লিষ্ট কফিলদের সাথে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেবার নির্দেশ দেন।

আল কাসিম জেলে প্রায় ৩০ জন বাংলাদেশি বিভিন্ন অপরাধে বন্দী রয়েছেন উল্লেখ করে রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী যাদের অপরাধ গুরুতর নয় জানিয়ে সাধারণ ক্ষমার অনুরোধ জানান। এ সময় গভর্নর গুরুত্বের সাথে বিষয়টি বিবেচনা করে দেখবেন বলে জানান। এছাড়াও গভর্নর বাংলাদেশ সরকারের নানাবিধ উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং ভ্রাতৃপ্রতিম বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক আরো জোরদারের প্রতি গুরুত্বারোপ করেন।

এর আগে রাষ্ট্রদূত রোববার সকালে আল কাসিম প্রদেশের পুলিশ প্রধান মেজর জেনারেল আলী বিন হাসান বিন মারদি এর সাথে বৈঠক করেন। এসময় রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশি কোন গৃহকর্মী নির্যাতনের শিকার হয়ে পুলিশের সহায়তা চাইলে তাকে দ্রুত সেবা প্রদানের অনুরোধ জানালে পুলিশ প্রধান সহায়তার আশ্বাস দেন। পুলিশ প্রধান আল কাসিমে অবস্থিত বাংলাদেশিদের প্রশংসা করেন ও তাদের যেকোন সমস্যা জানানো হলে সহায়তার আশ্বাস দেন।

রাষ্ট্রদূত ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী গতকাল রাতে আল কাসিম শহরে বসবাসরত বিভিন্ন পেশার অভিবাসী বাংলাদেশীদের সাথে মতবিনিময় করেন। এসময় তিনি অভিবাসীদের বিভিন্ন সমস্যার কথা মনোযোগ দিয়ে শোনেন ও দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দেন। রাষ্ট্রদূত অভিবাসীদের সৌদি আরবে দেশের ভাবমূর্তি বৃদ্ধি করার আহবান জানান। উল্লেখ্য, আল কাসিম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিভাগে প্রায় ৩০ জন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী বৃত্তি নিয়ে পড়াশোনা করছে। এছাড়া এখানে বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকজন বাংলাদেশি শিক্ষক ও বিভিন্ন হাসপাতালে কিছু চিকিৎসক কর্মরত রয়েছেন।