চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সৈয়দ শামসুল হকের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

কুড়িগ্রামে সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হয়েছে।

সোমবার সকালে কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ চত্বরে শোকর‌্যালি করা হয়। পরে তার সমাধিতে জেলা প্রশাসন, কলেজ প্রশাসন, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাব, জেলা আইনজীবী সমিতিসহ বিভিন্ন সংগঠন শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে নীরবতা পালন, দোয়া মাহফিল ও সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা প্রশাসক মোঃ রেজাউল করিম, কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ আব্দুল মান্নান, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহ্বায়ক শ্যামল ভৌমিকসহ অন্যরা আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন।

বিজ্ঞাপন

বক্তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে সৈয়দ হকের সমাধিকে ঘিরে সাংস্কৃতিক বলয় নির্মাণের দাবি জানান।

১৯৩৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর কুড়িগ্রামে সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হক জন্মগ্রহণ করেন।

সৈয়দ হকের ৬২ বছরের বর্ণাঢ্য লেখকজীবনে রচিত গ্রন্থের সংখ্যা শতাধিক। তাস, শীত বিকেল, রক্তগোলাপ, আনন্দের মৃত্যু, প্রাচীন বংশের নিঃস্ব সন্তান, জলেশ্বরীর গল্পগুলো উল্লেখযোগ্য গল্পগ্রন্থ।

কবিতাগ্রন্থের মধ্যে একদা এক রাজ্যে, বিরতিহীন উৎসব, বৈশাখে রচিত পংক্তিমালা, পরাণের গহীন ভিতর, নিজস্ব বিষয়, রজ্জুপথে চরেছি, বেজান শহরের জন্য কোরাস, এক আশ্চর্য সংগমের স্মৃতি, অগ্নি ও জলের কবিতা, আমি জন্মগ্রহণ করিনি, রাজনৈতিক কবিতা, নাভিমূলে ভস্মাধার, ধ্বংস্তূপে কবি ও নগর এবং উপন্যাসের মধ্যে দেয়ালের দেশ, এক মহিলার ছবি, অনুপম দিন, সীমানা ছাড়িয়ে, নীল দংশন, স্মৃতিমেধ, মৃগয়ায় কালক্ষেপ, স্তব্ধতার অনুবাদ, এক যুবকের ছায়াপথ, স্বপ্ন সংক্রান্ত, বনমালা কিছু টাকা ধার নিয়েছিল, ত্রাহি, তুমি সেই তরবারী, কয়েকটি মানুষের সোনালী যৌবন, নির্বাসিতা, নিষিদ্ধ লোবান, খেলারাম খেলে যা, মহাশূন্যে পরাণ মাষ্টার, দ্বিতীয় দিনের কাহিনী, বালিকার চন্দ্রযান, আয়না বিবির পালা, কালঘর্ম, অন্য এক আলিঙ্গন উল্লেখযোগ্য।

২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর মৃত্যুবরণ করেন সৈয়দ হক।