চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সেপ্টেম্বর থেকে পর্যটকদের জন্য খুলে দেয়া হচ্ছে সাজেক ভ্যালি

করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘ পাচঁ মাস বন্ধ থাকার পর পর্যটকদের সবচেয়ে আকর্ষণীয় রিসোর্ট রাঙ্গামাটির সাজেক ভ্যালি আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আহসান হাবিব জিতু জানান, স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাঙ্গামাটির সবচেয়ে আকর্ষণীয় পর্যটন কেন্দ্র সাজেক ভ্যালি সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন।

বিজ্ঞাপন

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক রিসোর্ট মালিকদের সঙ্গে আলোচনা করে চলতি বছরের ১ সেপ্টেম্বর থেকে সাজেক পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে আগত পর্যটকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচলের অনুরোধ করেন তিনি।

বিজ্ঞাপন

এ বিষয়ে সাজেক কটেজ মালিক সমিতির সভাপতি সুপর্ণ দেব বর্মণ বলেন, পর্যটন স্পট সাজেক সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার বিষয়ে প্রশাসনের সঙ্গে আমাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। আগামী ১ সেপ্টেম্বর থেকে পর্যটকরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে সাজেক ভ্রমণ করতে পারবেন। তবে আগত পর্যটকরা যাতে নিয়ম  মোতাবেক স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলে সে বিষয়ে কটেজ মালিকরা সতর্ক থাকবে বলে জানান তিনি।

বিজ্ঞাপন

অবকাশ রিসোর্টের মালিক লালমিং ময়া জানান, দেশের সব পর্যটন কেন্দ্র খুলে দিলেও সাজেক পর্যটন কেন্দ্র এতদিন বন্ধ ছিল। সাজেক পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়ার সিদ্ধান্তকে আমরা স্বাগত জানাই। দীর্ঘদিন বিশ্ব মহামারির কারণে পর্যটন কেন্দ্রগুলো বন্ধ থাকায় আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে রিসোর্ট মালিকরা।

সাজেক পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেওয়ার ফলে ক্ষতি কিছুটা পুষিয়ে নেয়া সম্ভব হবে বলে মনে করেন এই ব্যবসায়ী। তিনি আরও বলেন, মাস্ক পরিধান ছাড়া কোন পর্যটককে আমরা কটেজে রুম ভাড়া দেব না।

অন্যদিকে, দীর্ঘ পাঁচমাস বন্ধ থাকার পর অবশেষে বাংলার দার্জিলিং নামে খ্যাত সাজেক ভ্যালি উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্তে অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে পড়া কটেজ ও হোটেল মালিকদের মনে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে।

এরই মধ্যে তারা কটেজ ও হোটেলগুলো পরিস্কার পরিচ্ছন ও সাজ-সজ্জার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।