চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সুশান্তের মৃত্যু: তদন্ত সিবিআইকে দেয়ার অনুরোধে মোদিকে চিঠি

সুশান্তের মৃত্যুর তদন্তের দায়িত্ব সিবিআইকে দেয়ার অনুরোধ করে মোদিকে চিঠি দিলেন বিজেপি সাংসদ

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর এক মাস পার হয়ে গেছে। এখনও চলছে তদন্ত। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ঘটনার তদন্ত করুক সিবিআই (কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা) এমন দাবিই তুলেছেন দেশের বহু মানুষ। এই মামলার তদন্তভার সিবিআইকে দেয়া যায় কিনা, তা খতিয়ে দেখার জন্য আইনজীবী ইস্কারান সিং ভাণ্ডারীকে নিযুক্ত করেছেন বিজেপি রাজ্যসভা সাংসদ সুব্রহ্মণ্যম স্বামী।

ইস্কারান ভাণ্ডারীর সঙ্গে লাইভে এসে সুব্রহ্মণ্যম স্বামী কথা বলেছেন এই বিষয়ে। তিনি বলেন, “আমি বিষয়টি নিয়ে আওয়াজ তুলেছি কারণ জনপ্রিয়তা পাওয়া সম্ভাবনাময় ক্যারিয়ারের একজন তরুণ হঠাৎ করে আত্মহত্যায় মারা গেল। সিনেমা জগতে বিষণ্ণ খুব সাধারণ বিষয়, কিন্তু তিনি বিষণ্ণ ছিলেন কেন? তার জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছিল, বিষণ্ণতার কারণ কী ছিল তাহলে? যেভাবে তাড়াহুড়া করে এটাকে আত্মহত্যা বলে দেয়া হলো? এমনকি মুম্বাই পুলিশও প্রথমেই ‘আত্মহত্যা’ বলে দিল। অথচ এটা প্ররোচনা যা শাস্তিযোগ্য অপরাধ, তদন্তও হলো না ঠিকমতো।”

বিজ্ঞাপন

তিনি আরও বলেন, ‘কিছুদিন ধরেই শুনছি বলিউডের নির্দিষ্ট কিছু মানুষের সঙ্গে দাউদ এবং আইএসআই-এর সম্পর্ক আছে, তারা নতুন কাউকে উঠতে দেয় না। সুশান্ত নিজের মতো চলতেন। তিনি কাজ হারাতে শুরু করলেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই আমাকে জানিয়েছেন, সেই মানুষগুলোই এই কাজে দায়ী। তাই সঠিকভাবে তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।’

বিজ্ঞাপন

সুব্রহ্মণ্যম স্বামী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে একটি চিঠি লিখে তদন্তে সিবিআইকে যুক্ত করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। চিঠিটি ইস্কারান সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করেছেন। চিঠিতে লেখা হয়েছে, ‘আমি আপনার কাছে অনুরোধ করছি, সরাসরি বা মহারাষ্ট্রের রাজ্যপালের মাধ্যমে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে সিবিআই তদন্ত করানোর জন্য নির্দেশ দিন।’

সুশান্তের মৃত্যুর ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন অভিনেতা শেখর সুমন, রাজ্যসভার সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়, সুব্রহ্মণ্যম স্বামী সহ আরও অনেকেই।

১৪ জুন রহস্যজনকভাবে মৃত্যু হয় বলিউডের তারকা অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের। এদিন দুপুরে মুম্বাইয়ের নিজ বাসা থেকে এই অভিনেতার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর দিনই পুলিশের দেয়া রিপোর্টে বলা হয়েছে, আত্মহত্যা করেছেন এই অভিনেতা। বিগত ছয় মাস ধরে হতাশায় ভুগছিলেন। কী কারণে তিনি হতাশায় ভুগছিলেন সেটি খতিয়ে দেখছে পুলিশ।