চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সীমান্ত হত্যা বাংলাদেশ-ভারতের জন্য দুঃখজনক: ভারতীয় হাই কমিশনার

সীমান্ত হত্যা বাংলাদেশ-ভারত উভয় দেশের জন্য দুঃখজনক বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাই কমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।

তিনি বলেন, ‘নিশ্চিতভাবে সীমান্তহত্যা উভয় দেশের জন্য দুঃখজনক এবং প্রত্যাশিত নয়। ভারতীয় সীমান্তরক্ষীকে সুনির্দিষ্টভাবে বলা হয়েছে, যদি তাদের উপর হামলার কোন শঙ্কা না থাকে তবে তারা যেন সীমান্তে কোন অবস্থাতেই গুলি না চালায়। আমরা কোনো দেশেই সীমান্ত হত্যা চাইনা’।

গতকাল সোমবার সকালে দিনাজপুর রায়সাহেবাড়ী এলাকায় অবস্থিত বাবা লোকনাথ কেন্দ্রীয় মন্দিরের পাশে ভারত সরকারের অর্থায়নে ১ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যায়ে নির্মিত মাল্টিপারপাস কমিউনিটি হলের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা যদি পরিসংখ্যান বিবেচনায় নেই তাহলে যেকোনো সময়ের তুলনায় বর্তমানে সীমান্ত হত্যা অনেক কমেছে। সীমান্তে যেকোনো হত্যাকাণ্ড অথবা আহতের ঘটনায় উভয় দেশের জন্য দুঃখজনক। দুই দেশের সম্মিলিত পদক্ষেপে এ ধরনের দুঃখজনক ঘটনা নিরসন করতে হবে’।

বিজ্ঞাপন

উদ্বোধন অনুষ্ঠান ও সুধী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ভারতীয় হাইকমিশনারসহ বক্তব্য রাখেন দিনাজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও বাংলাদেশ হিন্দু কল্যাণ ট্রাষ্টের সিনিয়র সহ-সভাপতি মনোরঞ্জন শীল গোপাল, বাংলাদেশের রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার সঞ্জীব কুমার ভাট্টি, রায়সাহেব বাড়ী এষ্টেটের এজেন্ট ও দিনাজপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি চিত্ত ঘোষ, প্রেসক্লাবের সাধারন সম্পাদক সুব্রত মজুমদার ডলার প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন শ্রী শ্রী লোকনাথ মন্দির মাল্টিপারপাস কমিউনিটি হলের সদস্য বিশ্বজিৎ ঘোষ কাঞ্চন।

এর আগে ভারতীয় হাই কমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী ফিতা কেটে শ্রীশ্রী লোকনাথ মন্দির মাল্টিপারপাস কমিউনিটি হলের উদ্বোধন করেন। ভারত সরকারের ১ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয়ে এই কমিউনিটি হলের নির্মাণ করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে সাংসদ মনোরঞ্জন শীল গোপাল বলেন, ‘বাংলাদেশে সম্প্রীতির বন্ধন ধরে রাখতে যা যা পদক্ষেপ প্রয়োজন তা গ্রহণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভারত আমাদের অকৃত্রিম বন্ধু। মহান মুক্তিযুদ্ধে ভারত যেভাবে বাংলাদেশের পাশে ছিল তা কখনোই ভুলে যাওয়ার নয়। যতই ষড়যন্ত্র করা হোক- ভারত-বাংলাদেশের যে রক্তের বন্ধন তা কখনোই বিচ্ছিন্ন হবে না’।

দুপুরে ভারতীয় হাইকমিশনার দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার ঐতিহাসিক কান্তজিউ মন্দির, সাঁওতাল বিদ্রোহের তেভাগা চত্বরে সিধু-কানু ভাস্কর্য, দীপ্ত জীবন ফাউন্ডেশন হাসপাতাল ও বীরগঞ্জ ডায়াবেটিস এন্ড ফুড কেয়ার সেন্টার পরিদর্শন করেন। এরপর খানসামা উপজেলার রামকলা এলাকায় ৭ কোটি টাকা ব্যায়ে বিবেকানন্দ বিদ্যানিকেতনের একটি ছাত্রাবাস ও কমিউনিটি ডাইনিং হল ও প্রশাসনিক ভবনের উদ্বোধন করেন ভারতীয় হাইকমিশনার।

ঐতিহাসিক কান্তনগর মন্দিরও পরিদর্শন করেন বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী।

বিজ্ঞাপন