চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সীমান্ত পেরিয়ে আচমকা নর্থ কোরিয়ায় ট্রাম্প

কোনো রকম পূর্ব পরিকল্পনা ছাড়াই সাউথ কোরিয়ার সীমান্ত পেরিয়ে নর্থ কোরিয়ায় ঢুকে গেলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। অবশ্য ভুল করে নয়, হঠাৎ করে নেয়া সিদ্ধান্তে নর্থ কোরীয় নেতা কিম জং উনকে সঙ্গে করেই দেশটির সীমান্তে প্রবেশ করেন তিনি।

এর মধ্য দিয়ে ট্রাম্প হয়ে উঠলেন ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় নর্থ কোরিয়ায় পা রাখা প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

বিজ্ঞাপন

গত সপ্তাহে জাপানের জি২০ সম্মেলনে যোগ দিয়ে এক টুইটবার্তায় নর্থ কোরীয় নেতা কিম জং উনের সঙ্গে সাক্ষাতের ইচ্ছা প্রকাশ করেন ট্রাম্প। টুইটে কিমকে তিনি জিজ্ঞেস করেন, ট্রাম্প সাউথ কোরিয়া সফরকালে কিম ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করতে আগ্রহী কিনা।

এরই ধারাবাহিকতায় দুই কোরিয়ার সীমান্তে কিমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন ট্রাম্প। দুই কোরিয়ার সীমান্তের এলাকা পানমুনজমে বৈঠক শেষে দু’জনে হাত মেলান। এরপর কিমের আমন্ত্রণে সীমানারেখা পার করে নর্থ কোরিয়া অংশে প্রবেশ করেন ট্রাম্প।

পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ আলোচনা আবারও শুরু করতে রাজি হয়েছেন ট্রাম্প-কিম। বৈঠক শেষে এ কথা জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

বিজ্ঞাপন

তিনি বলেন, দু’পক্ষের বৈঠকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ ইস্যুতে আলোচনায় যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। এ বিষয়ে চুক্তি সইয়ের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছেন তারা।

দু’নেতার এ আকস্মিক বৈঠককে স্বাগত জানিয়েছেন বিশ্ব নেতারা। অন্যদিকে নর্থ কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ এই বৈঠক এবং ট্রাম্পের আচমকা নর্থ কোরিয়ায় প্রবেশ নিয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট করেছে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প-নর্থ কোরিয়ায়
প্রথমে দুই কোরিয়ার সীমান্তে দাঁড়িয়ে দেখা করেন এবং হাত মেলান এই দুই নেতা

কেসিএনএ বলেছে, কোরিয়া যুদ্ধ বন্ধের জন্য হওয়া যুদ্ধবিরতি চুক্তির ৬৬ বছর পর এমন অসাধারণ একটি ঘটনা ঘটল ডিপিআরকে (নর্থ কোরিয়ার আনুষ্ঠানিক নাম) এবং যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে। ‘ডিপিআরকে ও যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ নেতারা পানমুনজামে ঐতিহাসিক করমর্দন করলেন, যে জায়গাটি এতদিন শুধু বিভাজনের প্রতীক হিসেবেই দাঁড়িয়ে ছিল।’

ভবিষ্যতে এই দুই নেতা নিয়মিত যোগাযোগ রাখতে এবং কোরীয় উপদ্বীপ অঞ্চলে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণসহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে নতুন অগ্রগতি আনতে একমত হয়েছেন বলে জানান ট্রাম্প।

Bellow Post-Green View