চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সিসি ফুটেজে ২ খুনি সনাক্ত, খোঁজা হচ্ছে ডিজে এক তরুণীকে

রাজধানীতে ভাড়াটে পরিচয়ে আসা অস্ত্রধারীরা এক ব্যবসায়ীকে তার বাসার ভেতর গুলি করে হত্যা করেছে। হত্যাকাণ্ডের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই দুই খুনিকে সনাক্ত করার দাবি করেছে পুলিশ। জড়িত সন্দেহে খোঁজা হচ্ছে ডিজে শিল্পী এক তরুণীকে।

রাজধানীর মাতুয়াইল এলাকার ব্যবসায়ী মজিবর রহমানের ৫ তলা বাসার চিলেকোঠা এক দিন আগে ভাড়া নেন দুই যুবক। রাতে তারা বাসার নিরাপত্তা কর্মীর মুখ হাত পা বেঁধে গেটের ভেতর লুকিয়ে থাকে। কলাবাগান ক্লাব থেকে নিজে গাড়ি চালিয়ে রাত সাড়ে ৩টার দিকে বাসায় ঢোকার সময় খুব কাছে থেকে মজিবর রহমানকে গুলি করে তারা।

বিজ্ঞাপন

ওয়ারি অপরাধ বিভাগের ডিসি সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, সিসি ক্যামেরায় দুজনের ছবি দেখেছি। একজনের চেহারা সুস্পষ্ট। দারোয়ান তাদের চেনে। শুধু নাম ও ঠিকানা পাইনি। দুইজন চিহ্নিত। 

বিজ্ঞাপন

টেলিফোনে হুমকির বিষয়ে পুলিশকে না জানালেও বাসায় কয়েকটি সিসি ক্যামেরা বসিয়েছিলেন ব্যবসায়ী মজিবর। রহস্যজনকভাবে একটি ক্যামেরা বন্ধ থাকলেও অন্যটিতে ধরা পড়ে কিলারদের গতিবিধি। বাসার নিরাপত্তাকর্মী ও নিহতের ড্রাইভারকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছে পুলিশ। খোঁজা হচ্ছে কনক নামের এক তরুণীকে।

নিহতের স্ত্রী বলেন, হারুন নামের যুবলীগ নেতা সম্রাট ভাইদের সঙ্গে চলাফেরা করে। সারুলিয়ায় একটা জায়গা দখল করে রাখছে। সে আমার স্বামীর সাথে যেগাযোগ করে যেন তিনি কথা বলে সব ঠিকঠাক করে দেয়। সে কথা বলছে পরে তারা নাকি ১২ লাখ টাকা দাবি করে।

তিনি আরো বলেন, কনক নামের এক মেয়ে বারে গান গায়। তার সাথে আমার স্বামীর সম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই মেয়ে আমার স্বামীর অনেক টাকা-পয়সা খাওয়ার পর সম্রাটের গ্রুপের সাঈদের সাথেও সম্পর্ক করে। তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব হয়েছে। পরে দলের লোক দিয়ে আমার স্বামীকে মেরেছে, গায়েবও করে ফেলতে চেয়েছিলো। 

নিহত মজিবর রহমানের বাড়ি গোপালগঞ্জ শহরে। রাজধানীর নওয়াবপুরে ইলেকট্রিক সামগ্রীর ব্যবসা রয়েছে তার। যাত্রাবাড়ি এলাকায় এর আগেও ঘটেছে ভাড়াটে বেশে খুনের ঘটনা।

Bellow Post-Green View