চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সিনেমায় ব্যবহৃত ভালুকগুলোর জন্য দরদী জোয়াকিন

‘ব্রাদার বিয়ার’ সিনেমার জন্য ব্যবহৃত ভালুকগুলিকে পশু অভয়ারণ্যে স্থানান্তর করার জন্য ফ্লোরিডার ডিজনি পার্ককে আহ্বান জানিয়েছেন জোয়াকিন ফিনিক্স।

২০০৩ সালে ‘ব্রাদার বিয়ার’ সিনেমায় জন্য ভালুকগুলো ব্যবহার করা হয়েছিল। এরপর এগুলোকে রাখা হয়েছে ফ্লোরিডার বিয়ারসাইড র‍্যাঞ্চ পার্কে। সম্প্রতি পিপল ফর দি ইথিকাল ট্রিটমেন্ট অফ অ্যানিম্যালস বিষয়টির বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলেছে। জানতে পেরে জোয়াকিন ফিনিক্সও ভালুকগুলোকে পশু অভয়ারণ্যে স্থানান্তর করার জন্য অনুরোধ করেছেন। তিনি চান, এই ব্যবসা থেকে এবার অবসর দেয়া হোক ভালুকগুলোকে।

বিজ্ঞাপন

বিয়ারসাইড র‍্যাঞ্চের স্বত্বাধিকারী মনিকা ওয়েলডেকে লেখা চিঠিতে অভিনেতা লিখেছেন, ‘ভালুকগুলো আরও ভালো জীবন প্রত্যাশা করে। এগুলোর কাছ থেকে প্রকৃতিকে ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে, যা তাদের সবচেয়ে প্রয়োজন। নিজেদেরকে তাদের যায়গায় ভাবুন। আমি নিশ্চিত আপনারাও বুঝতে পারবেন। ভালুক গাছ বাইতে পছন্দ করে, মাটি খুড়তে পছন্দ করে, খেলতে ভালোবাসে। তারা দূরদূরান্ত ঘুরে খাবার খোঁজে। হাজারো অপরিচিত মানুষের মাঝে খাঁচায় আঁটকে থাকা ওদের কাজ নয়।’

১৯২৬ সালে প্রতিষ্ঠিত ফ্লোরিডার বিয়ারসাইড র‍্যাঞ্চে ১৩টি ভালুক আছে। ভালুকগুলো দর্শকদের দেখার জন্য রাখা হয়েছে। সিনেমার প্রয়োজনেই এই ভালুকগুলোকে ব্যবহার করা হয়। দর্শকের মনোরঞ্জন করতে নেয়া হয় বিভিন্ন মেলায় এবং উৎসবে। এছাড়াও জন্মদিন, পিকনিক, বিয়ের অনুষ্ঠানেও এই ভালুকগুলো ভাড়া নেয়া হয়। এগুলোর মাঝে ব্রুলো এবং বামবি নামের দুটি ভালুককে ব্যবহার করা হয়েছিল ‘ব্রাদার বিয়ার’ সিনেমার জন্য।

বিজ্ঞাপন