চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সিনেমায় অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা

এক কথায় ‘অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা’ কী, এটা বলে দেয়া মুশকিল। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার উদ্দেশ্য হচ্ছে গোপন বা লুকিয়ে রাখা তথ্য মানুষের সামনে তুলে ধরা। সাধারণত ক্ষমতাবান কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে এসব তথ্য গোপন রাখে। এই কাজের জন্য একজন সাংবাদিককে সাধারণত প্রকাশ্য ও গোপন নানা উৎস (সোর্স) ব্যবহার করতে হয়, ঘাটতে হয় নানা ধরনের নথিপত্র।

কোনো অপরাধ, রাজনৈতিক দুর্নীতির তথ্য বের করার জন্য একজন অনুসন্ধানী সাংবাদিক মাসের পর মাস বা বছরের পর বছর কাজ করে প্রতিবেদন তৈরি করেন। অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা নিয়ে তৈরি কিছু সিনেমা দেখে নিলে এই বিষয়ে আরও ভালো ধারণা পাওয়া যায়। তেমনই দশটি সিনেমা সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক এই ফিচারে:

স্টেট অব প্লে (২০০৯): রাসেল ক্রো ও র‍্যাচেল ম্যাকঅ্যাডামস অভিনীত এই ফিকশনাল পলিটিকাল থ্রিলারটি উত্তেজনায় ভরপুর। কেভিন ম্যাকডোনাল্ড পরিচালিত এই ছবিতে একজন আমেরিকান কংগ্রেসম্যানের উপপত্নীর সন্দেহজনক মৃত্যুর বিষয়ে সাংবাদিকের তদন্ত দেখানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

মি. জোনস (২০১৯): অ্যাগনিস্কা হল্যান্ড পরিচালিত এই থ্রিলার চলচ্চিত্রটি ওয়েলস সাংবাদিক গ্যারেথ জোনস এর জীবন অবলম্বনে তৈরি করা হয়েছে। হোলডোমর সহ ১৯৩৩-৩৩ এর সোভিয়েত দুর্ভিক্ষের অস্তিত্বের কথা তিনি জানিয়েছিলেন।

দ্য পোস্ট (২০১৭): স্টিভেন স্পিলবার্গ পরিচালিত ও প্রযোজিত এই ছবির মূল দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছেন মেরিল স্ট্রিপস ও টম হ্যাঙ্কস। সত্য ঘটনা অবলম্বনে সিনেমাটি নির্মাণ করা হয়েছে দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট পত্রিকার ‘পেন্টাগন পেপারস’ নামক গোপন নথি ফাঁস করে দেয়া নিয়ে।

দ্য পেপার (১৯৯৪): রন হাওয়ার্ড পরিচালিত এই ছবিতে অভিনয় করেছেন মাইকেল কেটন, গ্লেন ক্লোজ, মারিসা তোমে, র‌্যান্ডি কায়েদ এবং রবার্ট ডুভাল। কমেডি ঘরানার এই ছবিতে একটি কাজের চাপে পিষ্ট নিউজরুম, সেখানের সাংবাদিক ও একটি খুন নিয়ে তদন্তের ঘটনা দেখানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

দ্য প্যারালাক্স ভিউ (১৯৭৪): অ্যালান জে পাকুলা প্রযোজিত এবং পরিচালিত এই আমেরিকান পলিটিক্যাল থ্রিলার চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন ওয়ারেন বিটি, হিউম ক্রোনিন, উইলিয়াম ড্যানিয়েলস এবং পলা প্রেন্টিস। এক পলিটিক্যাল রিপোর্টার একজন রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থীর খুন হওয়া নিয়ে প্রতিবেদন করতে গিয়ে ঘটনার সাথে জড়িয়ে পড়ে। সত্যের যত কাছাকাছি যেতে থাকে, তত তার মৃত্যু ভয় বাড়তে থাকে।

জোডিয়াক (২০০৭): ডেভিড ফিঞ্চার পরিচালিত এই আমেরিকান রহস্য ও থ্রিলারধর্মী চলচ্চিত্রটি তিন ধরনের পেশার তিনজনকে ঘিরে। রবার্ট গ্রেস্মিথ (জেক জিলেনহ্যাল) পেশায় একজন কার্টুনিস্ট, অন্যজন ডেভিড টস্কি (মার্ক রাফেলো) হল একজন গোয়েন্দা বিভাগের পুলিশ অফিসার এবং পল এভ্যারি (রবার্ট ডাউনি জুনিয়র) হলেন একজন ক্রাইম প্রতিবেদক। তাদের উদ্দেশ্য একটাই, সিরিয়াল কিলার জোডিয়াককে খুঁজে বের করা।

দ্য কিলিং ফিল্ডস (১৯৮৪): বিখ্যাত সংবাদকর্মী সিডনি শনবার্গের কম্বোডিয়ার গণহত্যা চলাকালীন সময়ে নিজের সহকর্মী-বন্ধুকে উদ্ধারের ঘটনা নিয়ে ‘দ্য কিলিং ফিল্ডস’ সিনেমাটি নির্মিত হয়।

অল দ্য প্রেসিডেন্টস মেন (১৯৭৬): বিখ্যাত পত্রিকা ওয়াশিংটন পোস্টের নির্ভীক সম্পাদক এবং দুই তরুণ সাংবাদিক সততা, দক্ষতা এবং নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করে পতন ঘটিয়েছিলেন বিশ্বের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তি তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের। এই ঘটনা নিয়ে লেখা ‘অল দ্য প্রেসিডেন্টস মেন’ শিরোনামের বই অবলম্বনে সিনেমাটি তৈরি করা হয়। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন অ্যালান জে. পাকুলা।

দ্য ইনসাইডার (১৯৯৯): এই কর্পোরেট থ্রিলার ঘরানার ছবিটি পরিচালনা করেছেন মাইকেল ম্যান। ছবিতে রাসেল ক্রো অভিনয় করেছেন জেফেরি উইগ্যান্ড চরিত্রে, যিনি নিজের জীবন ও ক্যারিয়ার ঝুঁকিতে ফেলেছেন টোব্যাকো ইন্ডাস্ট্রির এক সত্য উদঘাটন করে।

স্পটলাইট (২০১৫): মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শিশুদের ওপর করা ক্যাথলিক পাদ্রিদের যৌন নিগ্রহের সংবাদ প্রকাশ করে তোলপাড় সৃষ্টি করে অনুসন্ধানী সাংবাদিকতার জন্য বিখ্যাত ‘দ্য বোস্টন গ্লোব’ পত্রিকার ‘স্পটলাইট’ টিম। এজন্য সাংবাদিকতার বিখ্যাত পুলিৎজার সম্মাননায়ও ভূষিত হয় তারা। ২০০২ সালের সেই ঘটনাকে ভিত্তি করে নির্মিত হয় ‘স্পটলাইট’। সেরা চলচ্চিত্রের অস্কার জিতে নিয়েছে ছবিটি।

বিজ্ঞাপন