চ্যানেল আই অনলাইন
হৃদয়ে বাংলাদেশ প্রবাসেও বাংলাদেশ

সারাবিশ্বে প্রায় ৬ কোটি মানুষ করোনায় আক্রান্ত

সারাবিশ্বে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫ কোটি ৯৫ লাখ ১৩ হাজার ছাড়িয়েছে।  

ওয়ার্ল্ডোমিটার ডট ইনফোর মতে: বিশ্বে মঙ্গলবার সকাল নাগাদ করোনায় সংক্রমিত শনাক্ত রোগী ৫ কোটি ৯৫ লাখ ১৩ হাজার ১৬৭ জন। কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১৪ লাখ ১ হাজার ৮৭৭ জন। এবং মোট সুস্থ হয়েছেন ৪ কোটি ১১ লাখ ৫৩ হাজার ৯০০ জন।

বিজ্ঞাপন

বিজ্ঞাপন

তবে গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে আরও ৮ হাজার প্রাণ কেড়ে নিয়েছে এই ভাইরাস। নতুন করে প্রায় ৫ লাখ মানুষের শরীরে শনাক্ত হয়েছে করোনা।

মঙ্গলবারও সর্বোচ্চ সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে একদিনে মৃত্যু ৯৭২ জন এবং মোট মৃত্যু ২ লাখ ৬৪ হাজারের মতো।

বিজ্ঞাপন

দিনের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু ইটালিতে ৬৩০ এবং মোট মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫০ হাজার। এদিকে ইউরোপের দেশ গুলোতে নভেম্বরের শুরুতে আবারও করোনায় মৃত্যু এবং আক্রান্ত বাড়ছে। একদিনে ফ্রান্সে মৃত্যু ৫০০জন। অন্যদিকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারত এপ্রিল থেকে নভেম্বরের সময়টাতে কিছুটা মৃত্যু হার কমাতে সক্ষম হয়েছে। দেশটিতে ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪৮১ জন, মোট মৃত্যু ১ লাখ ৩৪ হাজার ছাড়িয়েছে। সংক্রমিত পৌনে ৯২ লাখ।

এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে একদিনে ৪৪৫ বেশি মানুষে মারা গেছে ইরানে; ৩৬১ জন রাশিয়ায়। ল্যাটিন আমেরিকার দেশে ব্রাজিলে ৩৪৪ জন এবং মেক্সিকোতে ৩০৩ জন।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ প্রভাব সারাবিশ্বে পড়লেও কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আছে যুক্তরাজ্য, জার্মানি, আর্জেন্টিনা এবং পেরু।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। চীনে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যু হয় ৯ জানুয়ারি। তবে তার ঘোষণা আসে ১১ জানুয়ারি। ১৩ জানুয়ারি চীনের বাইরে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় থাইল্যান্ডে। পরে বিভিন্ন দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে।

করোনার প্রাদুর্ভাবের পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ জানুয়ারি বৈশ্বিক স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। ২ ফেব্রুয়ারি চীনের বাইরে করোনায় প্রথম কোনো রোগীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটে ফিলিপাইনে। ১১ মার্চ করোনাকে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।